মাটির নিচে আরেক উ.কোরিয়ার সন্ধান!

প্রকাশঃ আগস্ট ১২, ২০১৭

Advertisement

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- 

পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী ও অন্যতম বৃহৎ রাষ্ট্র আমেরিকার শাসানিকে উপেক্ষা করে একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে উত্তর কোরিয়া। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কিছুক্ষণের মধ্যে উত্তর কোরিয়াকে গুড়িয়ে দেওয়ার হুঁশিয়ারির পরও কিম এসব হম্বি-তম্বির কোন তোয়াক্কাই করেন না। কিন্তু কিমের এমন সাহসের কারণ কী?

জানা গেছে, উত্তর কোরিয়া মাটির নিচেও তৈরি করেছে এক বিশাল এলাকা। মূলত মাটির নিচে রয়েছে দেশটির ভূগর্ভস্থ রেললাইন। আপাতত দেশটির সাধারণ মানুষ এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে এসব ভূগর্ভস্থ রেল ব্যবহার করে। কিন্তু কখনো যদি প্রয়োজন হয় তবে দেশটির সকল মানুষই এই ভূগর্ভস্থ স্থাপনায় অবস্থান নিতে পারবে।

ধারণা করা হচ্ছে, শুধু যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নীতকরণই নয়; মাটির নিচের এসব স্থাপনা তৈরি করার সময় সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার কথাও ভাবছিলেন দেশটির কর্তারা। আর এজন্যই ওই উত্তর কোরিয়ার ভূগর্ভস্থ স্থাপনাগুলো সুবিশাল জায়গা নিয়ে বিস্তৃত।

ডেইলি মেইলের একটি প্রতিবেদনে প্রকাশ করা হয়, উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ের নিচে যে রেল ব্যবস্থা, তা ভূমির উপরিভাগ থেকে প্রায় ৩৬০ ফুট গভীরে। আর এর ফলে মাটির উপরিভাগে যতো বড় পারমাণবিক হামলাই হোক না কেন তা সেখানে অবস্থান নেওয়া মানুষের কোন ক্ষতিই করতে পারবে না।

তবে এই সুরক্ষা ব্যবস্থা কিম জং উনের তৈরি নয়। এগুলো তিনি উত্তরাধিকার সূত্রেই পেয়েছেন। ১৯৬৮ থেকে ১৯৭৩ সালের মধ্যে ওই স্থাপনাটি কিমের দাদা কিম ইল সান তৈরি করেন।

Advertisement

Advertisement

কমেন্টস