এই তো সেদিন! অথচ ১৭ বছর

প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৮

নাঈম আহম্মেদ,বনানী প্রতিনিধি : 

ভালোবাসা নিয়ে অনেক সংজ্ঞা আছে। আছে হাজারো উপাখ্যান। রয়েছে প্রেমের চুলছাঁটা বিশ্লেষণ। তবু কোনটাকেই পরিপূর্ণ বলা চলেনা। দুনিয়াময় ভালোবাসা হলো এক নিগূঢ়তম রহস্যের নাম। যে রহস্যের উদঘাটন করতে যাওয়াটাই এক রকম বোকামি। এর না আছে কূল, না আছে তল! মানুষ হিসেবে কেবল প্রিয় মানুষটিকে ভালোবেসে যাওয়ার চেষ্টা করাই উচিৎ।

কেননা, ভালোবাসায় মন্দ কিছু নেই। ভালোবাসা অপরিসীম। মহিমান্বিত ব্যাপার। প্রত্যেক হৃদয় প্রেমের ছোঁয়ায় আবদ্ধ। বি.ডি.মর্নিং এর সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে ভালোবাসা নিয়ে এমনই অভিব্যক্তি জানালেন ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভারসিটির আইন ও বিচার অনুষদের সহকারী অধ্যাপিকা রনজিয়ারা রহমান। তিনি বলেন -” শুরুটা সেই ১৭ বছর আগের। যখন আমি সবেমাত্র রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পা রেখেছি। একই অনুষদের সহপাঠী রুকনুজ্জামানের সাথে পথচলার রেশে কখন যে ভালো লাগা তৈরি হল তা আমি ঘুণাক্ষরেও টের পাইনি। একটা সময় আমরা দুজন দুজনের প্রতি নির্ভরশীল হয়ে উঠি। ভালো লাগাটা প্রেমে পরিণয় পায়। পারিবারিকভাবে বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে নিয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয় ডিঙানোর পূর্বেই আমরা বিয়ে করে নিই।

রনজিয়ারা ও রুকনুজ্জামান দম্পতীর ভালোবাসার জগৎকে আরও বেশি আলোকিত করতে জন্ম নেয় দু সন্তান। ভালোবাসায় সফল এই অধ্যাপিকা পেশায় ফটোগ্রাফার স্বামী ও সন্তান নিয়ে বেশ সুখী। ভালোবাসা দিবসকে কিভাবে মূল্যায়ন করছেন জানতে চাইলে তিনি বি.ডি.মর্নিংকে জানান – ভালোবাসার জন্য দিবসের খুব বেশি প্রয়োজন নেই। ভালোবাসা প্রতিটি মুহূর্তময় জুড়ে থাকে। নিজের প্রিয়জনের প্রতি যত্নশীল হওয়াটাই ভালোবাসা। নির্ভরতার জায়গাটাকে আঘাত না করার নামই ভালোবাসা বলে তিনি মনে করেন।

কমেন্টস