দুই বছর পর সিনেমায় আসছে জোভান

প্রকাশঃ ডিসেম্বর ৩১, ২০১৬

বিডিমর্নিং ডেস্ক- 
বিজ্ঞাপন ও টেলিভিশন নাটকের পরিচিত মুখ ফারহান আহমেদ জোভান। অনন্য মামুনের ‘অস্তিত্ব’ সিনেমায় একটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে রূপালি পর্দায় অভিষিক্ত হলেও রূপালি পর্দায় নাকি নিয়মিত হওয়ার কোনো ইচ্ছে নেই তার।

গ্লিটজকে জোভান বলেন, “অনন্য মামুনের ‘অস্তিত্ব’ সিনেমায় অভিনয় করার পরে আমি বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি স্বনামধন্য প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে তাদের সিনেমাতে অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলাম। কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে এখুনি ছোট পর্দায় অভিনয়ের পাট চুকিয়ে সিনেমায় অভিনয় করাটা আমার জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত হবে না। কারণ সিনেমায় অভিনয়ের আগে একজন শিল্পীর নিজের যথেষ্ট প্রস্তুতির একটি বিষয় রয়েছে।”

তিনি আরো বলেন, “নাটককে ঘিরে আমার বেশ কিছু পরিকল্পনা রয়েছে। বর্তমানে নাটকের ক্ষেত্রে আমি যে ধরনের ঝুঁকি গ্রহন করতে পারছি, সিনেমাতে অভিনয় শুরু করেই আমি হঠাৎ করেই সেটা পারবো না এবং তার জন্য আমি নিজে এখনও প্রস্তুত নই। তাই আমি আগামী দুই বছর নাটকে নিয়মিত থাকতে চাই। নাটকে আমি আরো অনেক বেশি নিরীক্ষাধর্মী ও ভালো গল্পের চরিত্রে অভিনয় করতে চাই।”

ইতমধ্যে ভিকি জাহেদের ‘মোমেন্টস’ ও ‘মায়া’ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করে যথেষ্ঠ সুনাম কুড়িয়েছেন তিনি। সিনেমাতে এখনই নিয়মিত হওয়ার পরিকল্পনা না করলেও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয়ের প্রতি নাকি তার রয়েছে বিশেষ দুর্বলতা। গ্লিটজকে সেই কথাও শোনালেন জোভান।

বললেন,“ ‘মোমেন্টস’ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে আমি যখন অভিনয় করি তখন স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের প্রতি আমার মোটেও তেমন কোনো আগ্রহ ছিলো না।

কিন্তু যখন আমার সেই স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি প্রকাশিত হলো তখন বেশ ভালো সাড়া পেলাম। এরপর স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘মায়া’তে অভিনয়ের পরেও তাই হল। পরে আমি অনুসন্ধান করে দেখলাম স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র অনলাইনভিত্তিক হওয়ার কারণে সবার নজরে এসেছে। বতর্মানে সবাই এখন ভিডিও শেয়ারিং সাইটগুলোর প্রতি ঝুঁকছেন।”

তিনি আরো বলেন, “টেলিভিশনে যে কোনো নাটক প্রচারিত হলেও সেই নাটকটি যখন ইউটিউবে প্রকাশিত হয় তখন ভালো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়। কারণ দর্শকরা তাদের অবসরে কিংবা কাজের ফাঁকে বিনোদনের জন্য ইউটিউবে ভালো ভালো কনটেন্ট অনুসন্ধান করছেন। তার মানে দাঁড়ালো, ইউটিউবই আমাদের শেষ আশ্রয় হয়ে যাচ্ছে। এর ফলে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের একটি ভালো বাজার তৈরি হয়ে গিয়েছে। তাছাড়া স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের মাধ্যমে খুব কম সময়ে খুব সুন্দর একটি গল্পও বলা যায়।”

ধারাবাহিক নাটকে নিয়মিত অভিনয়কে ঘিরেই নাকি সবচেয়ে বেশি ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে জোভান বলেন, “নিয়মিত ধারাবাহিক নাটকে অভিনয়কে ঘিরেই আমার সবচেয়ে বেশি ব্যস্ততা। বতর্মানে আমি ইমরাউল রাফাতের ‘তরুণ তুর্কি’, নাজনীন হাসান চুমকির ‘নাগরদোলা’, ‘ মোস্তফা কামাল রাজের ‘চৌধুরী এন্ড সন্স’, অম্লান বিশ্বাসের ‘শূণ্যতা’, আর বি প্রিতমের ‘কম-ইউনিটি’ ইত্যাদি নাটকগুলো অভিনয় করছি। এছাড়াও  মোস্তফা কামাল রাজের ‘নয় ছয়’ ও মাবরুর রশিদ বান্নার ‘ব্যাক বেঞ্চার’ নাটকদুটোতে অভিনয় করছি। যদিও বর্তমানে অনিবার্য কারনে এই নাটক দুটোর সম্প্রচার সাময়িকভাবে বন্ধ রয়েছে।”

তিনি বলেন,“ধারাবাহিক নাটকের পাশাপাশি নিয়মিত খণ্ড নাটকগুলোতেও অভিনয় তো চলছে। বিশেষ দিবসের নাটকগুলোকে ঘিরেও বেশ ব্যস্ত সময় পার করতে হয়, যেমনি বর্তমানে চলছে। এছাড়াও মাঝে মাঝে ভালো গল্পের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব পেলে সেই স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রেও অভিনয় করছি।

একইভাবে ভালো গল্প পেলে মাঝে মাঝে মিউজিক ভিডিওতে মডেলিং করছি। এছাড়াও একটি মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের নিয়মিত মডেল হিসেবেও কাজ করছি।”

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য কাজ গুলো হচ্ছে মাবরুর রশিদ বান্নার ‘শত ডানার প্রজাপতি’, ‘লাল রঙা স্বপ্ন’,  তন্ময় তানসেনের ‘তোমায় দিলাম পৃথিবী’, নাজনীন হাসান চুমকির ‘টমবয়’, মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের ‘আমি তুমি’ রেদওয়ান রনির ‘দেয়ালের ওপারে’ ‍ইত্যাদি।

কমেন্টস