মায়াবী সুরের সেই অ্যাডেল

প্রকাশঃ জুন ১২, ২০১৫

আমানুর অমি-

 

পৃথিবীজুড়ে যেসব সঙ্গীতশিল্পীরা খুব কম বয়সেই অনেক কিছু অর্জন করেছে তাদের তালিকায় ‘অ্যাডেল’ নামটি অনায়াসেই লিখা যায়। যুক্তরাজ্যে জন্মগ্রহণকারী ২৭ বছর বয়সী বিশ্ববিখ্যাত এই সঙ্গীতশিল্পীর ঝুলিতে আছে ৬ টি গ্র্যামী পুরস্কারসহ ‘গিনেজ বুক অফ ওয়ার্ল্ড’ এর ৫ টি বিশ্ব রেকর্ড, বি.বি.সিএর ‘সেরা সঙ্গীত ২০০৮’ এবং বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন যায়গায় সেরা সঙ্গীতশিল্পীর অনেক পুরস্কার।
অ্যাডেল লরী ব্লু অ্যাডকিন্স(ইংরেজি: Adel Laurie Blue Adkins) ৫ মে ১৯৮৮ সালে ইংল্যান্ডের টোটেনহামে জন্মগ্রহণ করেন।শুধুমাত্র ‘অ্যাডেল’ হিসেবেই অধিক জনপ্রিয় একজন ইংরেজ গায়ক, গীতিকার, সঙ্গীতজ্ঞ, সঙ্গীত রচয়িতা এবং সঙ্গীতযন্ত্র বিশারদ। অ্যাডেল ২০০৬ সালে এক্সেল রেকর্ডিং থেকে চুক্তি প্রস্তাব লাভ করে যখন তার একজন বন্ধু মাইস্পেস নামক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার একটি ডেমো প্রকাশ করে। এভাবেই যাত্রা শুরু হয় অ্যাডেল এর।
তার প্রথম সঙ্গীত এ্যালবাম ‘19২০০৮ এ প্রকাশিত হয় যা ব্যাপক ব্যবসা সাফল্য এবং সমালোচনা লাভ করে। এই এলবাম বেশ কিছু পুরস্কার অর্জন করতে সক্ষম হয়। ২০০৯ সালের গ্র্যামী পুরস্কার অনুষ্ঠানে, আডেল নবাগত শিল্পী এবং সেরা নারী পপ কন্ঠশিল্পীর পুরস্কার অর্জন করেন। ২০১১ সালে অ্যাডেল তার দ্বিতীয় এ্যালবাম ‘21প্রকাশ করেন যা ব্যপক সমালোচনার সাথে গৃহীত হয় এবং বছরের সেরা এ্যালবাম পুরস্কারসহ তাকে মোট ছয়টি গ্র্যামী পুরস্কার এনে দেয়। এই অ্যালবামটির জন্য আডেল ২০১২ ব্রিট অ্যাওয়ার্ড এবং তিনটি আমেরিকান মিউজিক অ্যাওয়ার্ডসহ আরও অসংখ্য পুরস্কার অর্জন করে। এই অ্যালবামটিকে যুক্তরাজ্যে ১৬বার প্লাটিনাম খেতাব দেয়া হয়। ইন্টারন্যশনাল ফেডারেশন অব ফনোগ্রাফিক ইন্ডাস্ট্রি এর বর্ননা অনুযায়ী এই অ্যালবামটি বিশ্বে ২৬ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়। ‘21এর ব্যপক সাফল্যের অনেকগুলো রেকর্ড গিনেস উল্লেখিত হয়। আডেলই সর্বপ্রথম যুক্তরাজ্যে এক বছরে ৩ মিলিয়ন কপি অ্যালবাম বিক্রি করতে সক্ষম হন।

 

এছাড়াও অ্যাডেলই প্রথম শিল্পী যার ৩টি গান একই সময়ে বিলবোর্ডের  সেরা ১০০ গানের তালিকার প্রথ ১০টি স্থান করে নেয় এবং প্রথম নারী সঙ্গীতশিল্পী যারদুটি অ্যালবাম বিলবোর্ডের সেরা ৫টি এ্যালবামের মধ্যে স্থান করে নেয়। ‘21’  যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি সময় ধরে তালিকার শীর্ষে থাকা নারী কন্ঠের শিল্পীর অ্যালবাম। ২০১২ এবং ২০১২ সালে বিলবোর্ড  ম্যাগাজিন অ্যাডেলকে বছরের সেরা শিল্পী হিসেবে ঘোষনা করে। ২০১২ সালে আডেলপ্রনীত সঙ্গীতের সেরা ১০০ নারীর তালিকায় ৫ম স্থান অর্জন করেন এবং টাইম পত্রিকা তাকে বিশ্বের সেরা অনুপ্রেরণা দানকারীদের অন্যতম হিসেবে ঘোষনা করে।
এর মধ্যে ২০১১ সালের দিকে এই বিশ্বসেরা শিল্পীকে হঠাৎ করেই একটি কণ্ঠনালীর অস্ত্রপচারের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। তারপর তিনি আবার তার চিরচেনা মায়াবি কণ্ঠ নিয়ে ফিরে আসেন আমাদের মাঝে।
২০১৩ সালে অ্যাডেল জেমস বন্ড সিরিজের ২৩তম ছবি স্কাইফল এর থিমসং স্কাইফলের জন্য ৮৫ তম একাডেমি পুরষ্কার, গোল্ডেন গ্লোব সেরা মৌলিক গানের পুরস্কারের সাথে একেবারে আস্ত একটা অস্কার তুলে নিয়ে আসেন এই শিল্পী। এখন আবার শোনা যাচ্ছে জেমস বন্ড সিরিজের আসন্ন মুভি ‘Spectre’এর থিম সং এর একটি রেকর্ডিং ও করেছেন অ্যাডেল।
এ পর্যন্ত অ্যাডেলের ‘19’ ও ‘21’ নামে মাত্র দুটি অ্যালবাম বের হয়েছে।  ‘25’ নামের আরেকটি অ্যালবাম বের হবার কথা ছিল ২০১৪ সালেই। কিন্তু সেটি বের হতে ২০১৫ এর সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন তার রেকর্ডিং লেবেল।

 

Advertisement

কমেন্টস