“দ্য ব্রাদারহুড অব ওয়্যার” একটি অসাধারন কোরিয়ান মুভি

প্রকাশঃ জুন ৩, ২০১৫

সামিউল ওয়াকিল তমালঃ

‘দ্য ব্রাদারহুড অব ওয়্যার” (Tae Guk Gi: The Brotherhood of War)

১৯৫০ সাল । শান্ত একটি দিনের শুরু । দক্ষিন কোরিয়ার রাজধানী সিউল এর ব্যাস্ততম একটি রাস্তা ধরে হেটে যাচ্ছে এক যুবক, যার নাম জিন-তাই-লি । পেশায় সে একজন মুচি । তার নুডুলস বিক্রির ব্যাবসা থাকলেও পাশাপাশি সে এই কাজ করে যাচ্ছে শুধুমাত্র তার ছোট ভাইয়ের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করার টাকা জোগার করার জন্য । নিজের ছোট ভাইয়ের জন্য সে স্কুল ছাড়তে দ্বিধা করে নি, সঙ্কোচ করেনি অন্যের জুতা পালিশ করতে । ছোট ভাইকে বড় একটি জায়গায় দেখার স্বপ্ন নিয়ে রাজধানী সিউল এর পথ ধরে হেটে চলা এই যুবকের গলা থেকে প্রতিমুহূর্তে হাঁক বেরোচ্ছে ” এই জুতা পালিশ, জুতা পালিশ ।”

কিছুক্ষণ পর তার সাথে দেখা হয় তার ছোট ভাইয়ের সাথে । দুই ভাই মেতে উঠে মিষ্টি খুনসুটিতে । বড় ভাই কষ্টের টাকা থেকে একটা আইসক্রিম কিনে দেয় তার ছোট ভাইকে । সেই সাথে উপহার দেয় রক্ত জল করা অর্থ দিয়ে কেনা এক অভিজাত কলম । ছোট ভাই অনেক বড় হবে, দুচোখে তার এই স্বপ্ন খেলা করতে থাকে ।

রাতে পারিবারিক আহারে সবাই একসাথে মিলিত হয় । সেখানে দুই ভাই থাকে, তাদের মা থাকে, আর থাকে বড় ভাইয়ের বাগদত্তা । রাতে সবাই মিলে গোসল করতে যায় একটি পুকুরে । সংগ্রামী এই জীবনের এমন মিষ্টি মুহূর্ত আর ভালবাসাময় মুহূর্ত উদযাপনের সময় বড় ভাইয়ের বাগদত্তা আনমনেই বলে উঠে ” আহ, সারাটি জীবন যদি এভাবেই কাটতো !!! একটু কম ও না, একটু বেশিও না । ঠিক এমন !!! ”

যে সুখ আর স্বপ্ন চোখে নিয়ে দিন পার করছিল এই পরিবারটি তা খুব বেশিদিন তাদের কপালে সইল না । ভাগ্যের নির্মমতায় সেই সময় শুরু হয় ১৯৫০ এর দক্ষিণ কোরিয়া ও উত্তর কোরিয়ার ঐতিহাসিক যুদ্ধ । ঘটনাচক্রে দুই ভাইকে যুদ্ধ করতে নিয়ে যায় দক্ষিন কোরিয়ান মিলিটারিরা আর যাওয়ার আগে বড় ছেলে তার মাকে প্রতিশ্রুতি দিয়ে যায় যে তার ছোট ভাইকে সে দেখে রাখবে, নিরাপদে ফিরিয়ে আনবে ।

 

q19M

 

এটি কোন যুদ্ধের গল্প নয়, এটি একটি দেশের জয় অথবা অন্য একটি দেশের পরাজয়ের গল্পও নয় । এই গল্পে সবকিছু ছাপিয়ে গিয়ে যা বড় হয়ে উঠেছে তা হল ভ্রাতৃত্ববোধ । ইতিহাস, যুদ্ধ, বীরত্ব, খ্যাতি সব কিছুকে ছাপিয়ে কেনই বা ভাইয়ের প্রতি ভাইয়ের টান শেষ পর্যন্ত বড় হয়ে উঠে ? চারিদিকে যখন মৃত্যুর মিছিল আর হাহাকার তখন কেনো একজনকে বাচিয়ে রাখার ইচ্ছাই আরেকজনের কাছে বড় হয়ে উঠে ? কেনো একজনের জীবনের মুল্য এতোটা আলাদা ভাবে ধরা দেয় আরেকজনের কাছে ? মৃত্যুর মিছিলে একটি সাধারন সৈনিকের জীবন কেনো আরেকজনের কাছে এতোটা দামি ? একে কিভাবেই বা সংজ্ঞায়িত করা যায় ?

কি হয় শেষে ? সুখি সেই আগের জীবনে কি ফিরতে পারে দুই ভাই ? মা কি ফিরে পায় তার দুই সন্তানকে ? প্রিয়তমা বাগদত্তা কি ফিরে পায় তার ভালোবাসার মানুষটিকে ? দক্ষিন কোরিয়ার রাজধানী সিউলের সেই ছোট্ট কুটিরে কি আবার সবাই এক হতে পারে ? জানতে হলে দেখতে হবে মুভিটা ।

 

"দ্য ব্রাদারহুড অব ওয়্যার" একটি অসাধারন কোরিয়ান মুভি

 

মুক্তি পাওয়ার পর সেই সময়ের সব রেকর্ড দুমরে মুচড়ে ভেঙ্গে চুরে সর্বকালের সেরা আয়ের মুভির তকমা পায় এটি । আর বর্তমানে সর্বকালের সেরা আয় করা সাউথ কোরিয়ান মুভির তালিকায় এর অবস্থান সপ্তম । সাউথ কোরিয়ার সবচেয়ে বড় ফিল্ম এ্যাওয়ার্ড এ ১০ টি ক্যাটাগরিতে নমিনেশন পেয়ে ৬টিতেই জিতে নেয় পুরস্কার ।

মুভিটাতে অভিনয়ে আছেন দ্য ম্যান ফ্রম নোহয়ার খ্যাত অউন বিন​ এবং জ্যাং ডং গুণ​।

মুভির অভিনয়, মিউজিক, দৃশ্যায়ন , এক কথায় অসাধারন । বিশেষ করে এর শেষ দৃশ্য এবং থিম মিউজিক ! অসাধারন!! শেষ দৃশ্য দেখে খুব অগোচরে একটা হাহাকার বয়ে যায়, একটা ব্যাথা, কিছু দীর্ঘশ্বাস । সাউথ কোরিয়ান মুভি তো, ইমোশনাল অত্যাচার !

 

photo27028

 

হাতে সময় পেলে দেখে ফেলুন যুদ্ধ এবং দুই ভাইয়ের ভালবাসা নিয়ে অসাধারন এই সিনেমাটি । হ্যাপি ওয়াচিং……।

 

Advertisement

কমেন্টস