অভিযুক্ত বিমানবালার সঙ্গে মিলার স্বামীর কথোপকথন ফাঁস

প্রকাশঃ অক্টোবর ১৬, ২০১৭

বিডিমর্নিং বিনোদন ডেস্ক-

১০ বছর প্রেমের সম্পর্ককে পরিণয়ে রূপ দিতে চলতি বছরের ১২ মে বৈমানিক পারভেজ সানজারির সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন সংগীতশিল্পী মিলা। কিন্তু বিয়ের পরই স্বামীর সঙ্গে একাধিক মেয়ের সম্পর্কের কথা জানতে পারেন তিনি। বিয়ের পর পাঁচ মাস পার না হতেই বিচ্ছেদের পথে হাঁটছেন এই তারকা।

বিমানবালার সঙ্গে তার স্বামীর অবৈধ সম্পর্ক আছে বলে জানিয়েছিলেন মিলা। সেই বিমানবালার নাম জান্নাত আরা। মিলা তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে জান্নাতের সঙ্গে সানজারির একটি ছবি ও ম্যাসেঞ্জারের কিছু চ্যাটের স্ক্রিনশট প্রকাশ করেছেন।

সেই বিমানবালার সঙ্গে মিলার স্বামী সানজারি

সোমবার (১৬ অক্টোবর) সকাল ১১ টায় মিলা তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘প্রথমত আমি আমার ব্যক্তিগত জীবনের তথ্য সবার সামনে তুলে ধরছি, তার কারণ অনেক বছর ধরেই আমার জীবন আর আমার ব্যক্তিগত নেই। আর তাই ভক্তদের কাছে জবাবদিহি করতে আমি বাধ্য।

আমার স্বামীকে প্রকাশ্যে একজন নিষ্পাপ মানুষ হিসেবে প্রচার করা হচ্ছে, যেন সে তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের কিছুই করতে সক্ষম নয়! শারীরিক নির্যাতন ও যৌতুকের অভিযোগ ছাড়াও সে যে অন্য নারীদের সঙ্গে পরকীয়া চালিয়ে যাচ্ছে এবং যত ইচ্ছা তত বেশি পরকীয়া চালাবে বলে তার স্ত্রীকে হুমকি দিয়ে মানসিক চাপের মধ্যে রেখেছে এসবের কিছুই তার সমর্থকেরা স্বীকার করতে চাইছে না।’

স্বামীর পরকীয়ার প্রমাণ হিসেবে জান্নাত আরা নামের এক তরুণীর সঙ্গে সানজিরের তোলা একটি ঘনিষ্ঠ ছবি ও চ্যাটলগের স্ক্রিনশটও পোস্টের সঙ্গে তুলে দিয়েছেন মিলা। এ ব্যাপারে মিলা লিখেছেন,‘হাতকড়া পড়ার আগে আমার ‘সাধু’ স্বামী কী কী করতো, তার ছোট্ট একটা উদাহরণ শুধু দিচ্ছি আমি। এক এয়ারহোস্টেস, যার সঙ্গে সে প্রকাশ্যে প্রেম করতো, তার সঙ্গে আমার স্বামীর চ্যাটলগ ও ছবি তুলে দিলাম।’

মিলা তার পাইলট স্বামীর কর্মস্থলের প্রতিও আঙুল তুলে বলেন, ‘যখন আপনারা সবকিছু জানেন, যখন আপনাদের কর্মকর্তাদের এহেন কার্যকলাপের পরও তার সাফাই গেয়ে তাকেই নিজেদের পোস্টার বয় হিসেবে উপস্থাপন করেন, তখন বাসায় থাকা আপনাদের মা-বোনদের কথা কি একটুও মনে পড়ে না? কেবলমাত্র একজন শিল্পী হওয়ার কারণে একজন নারীকে না ব্যক্তিগতভাবে না চিনেও তার দিকে কাঁদা ছুঁড়তে আপনাদের বাঁধে না।’

উল্লেখ্য, গত ৫ অক্টোবর রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুকের দাবিতে মারধরের অভিযোগে মামলা করেন মিলা। মামলার পরপরই গ্রেফতার হন সানজির। সম্প্রতি দুইবারের চেষ্টাতেও জামিন পেতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

কমেন্টস