সালমান শাহকে হত্যায় ১২ লাখ টাকার চুক্তি করেছিল যে ৬ জন

প্রকাশঃ আগস্ট ১০, ২০১৭

বিডিমর্নিং বিনোদন ডেস্ক-

চলচ্চিত্রের অমর নায়ক সালমান শাহের মৃত্যুরহস্যে নতুন মোড়। তার মৃত্যু যে আত্মহত্যা নয়, বরং হত্যাকাণ্ড সেই নিয়ে উঠে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা গেছে দসালমান শাহকে হত্যার জন্য ১২ লাখ টাকার চুক্তি হয়েছিলো। এই চুক্তির চূড়ান্ত রুপেই তাকে হত্যা করা হয় যা তার হত্যার আসামি রিজভী সালমান শাহের মৃত্যুর এক বছর পরেই এক জবানবন্দিতে এই কথা স্বীকার করেছিলেন। একই সাথে চুক্তিতে কাড়া কাড়া জড়িত ছিল তাদের নামও বেরিয়ে এসেছে।

রিজভীর মতে, ১২ লাখ টাকার চুক্তি করেছিলেন সালমানের স্ত্রী সামিরার মা লাতিফা হক। রিজভী ১৯৯৭ সালের জুলাইয়ে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে এই তথ্য জানিয়েছিলেন। সালমানকে হত্যা করতে সামিরার মা লাতিফা হক ডন, ডেভিড, ফারুক, জাভেদের সঙ্গে ১২ লাখ টাকার চুক্তি করেন। চুক্তিতে উল্লেখ ছিল, সালমানকে শেষ করতে কাজের আগে ৬ লাখ ও কাজের পরে ৬ লাখ দেয়া হবে।

কিভাবে হত্যা করা হয় সেই ঘটনা নিয়ে আসামি রিজভি আরো জানায়, সালমানকে ঘুমাতে দেখে তার ওপর ঝাপিয়ে পড়ে, ফারুক পকেট থেকে ক্লোরোফোমের শিশি বের করে এবং সামিরা তা রুমালে দিয়ে সালমানের নাকে চেপে ধরে। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে মামলার তিন নম্বর আসামি আজিজ মোহাম্মদ এসে সালমানের পা বাধে এবং খালি ইনজেকশন পুশ করে। এতে সামিরার মা ও সামিরা সহায়তা করে। পরে ড্রেসিং রুমে থাকা মই নিয়ে এসে, ডনের সাথে আগে থেকেই নিয়ে আসা প্লাস্টিকের দড়ি আজিজ মোহাম্মদ ভাই সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলায়। ছাত্তার ও সাজু নামে আরো দু’জনের নাম উল্লেখ করেছিলেন রিজভী।

যদিও হত্যার এক বছর পার হলে সিআইডির রিপোর্টে বলা হয়, এটি আত্মহত্যা। অবশেষে হত্যার ১২ বছর পরেও জুডিশিয়াল ইনকোয়ারির রিপোর্টে একই কারণ বর্তানো হয়।

এখন ২১ বছর পর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না সালমান শাহ হত্যা মামলার অনেক কাগজপত্র। আদালতে হত্যার সঙ্গে জড়িত রিজভী স্বীকারোক্তি দেয়ার পরও কোন আসামিকে গ্রেফতার বা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি। সালমানের পরিবারের দাবি নায়ককে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আত্মহত্যা করেননি। তাদের হত্যা তালিকায় নাম ছিল সামিরা ও তার পরিবারের।

Advertisement

কমেন্টস