মাহির বিরুদ্ধে প্রযোজকের অভিযোগ

প্রকাশঃ মে ১৬, ২০১৭

বিডিমর্নিং বিনোদন ডেস্ক-

জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মাহির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন এক প্রযোজক। এ ব্যাপারে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি বরাবর চিঠি দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। অতিরিক্ত পারিশ্রমিক দাবি, শিডিউল না দেওয়া প্রভৃতি অভিযোগ রয়েছে সেখানে।

মাহির বিরুদ্ধে ১০ মে প্রযোজক তাপসী ঠাকুর লিখিত আকারে অভিযোগ করেছেন পরিচালক সমিতিতে। সেখানে মাহির ‘খামখেয়ালিপনা’র জন্য ‘মনে রেখো’ ছবিটির কাজ শেষ হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন তিনি। এছাড়া ছবির চুক্তিবদ্ধ টেকনিশিয়ানদের ব্যাপারে মাহির আপত্তির কথাও বলেছেন। মাহি অতিরিক্ত পারিশ্রমিক, ভারতীয় টেকনিশিয়ান নেওয়া, বিদেশে গানের শুটিং করাসহ বিভিন্ন আবদার করছেন বলে জানিয়েছেন। অচিরেই এর সুরাহা না হলে এই নায়িকার বিরুদ্ধে উকিল নোটিশ পাঠানো হতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

গত সোমবার ১৫ মে মাহি বলেন, ‘উকিল নোটিশ আসুক আগে, তারপর দেখা যাবে। সত্যি বলতে আমার বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ তোলা হয়েছে, তা ঠিক নয়। ঈদের ছবি হিসেবে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে ‘মনে রেখো’র কাজ শুরু করিছলাম। কিন্তু যেভাবে কাজ হওয়ার কথা ছিলো, তা করা হয়নি। একটি ছবির কাজ সর্বোচ্চ ২৫দিন লাগতে পারে। সেখানে আমি ইতিমধ্যে ৪৫ দিন শিডিউল দিয়েছি। এখনও নাকি ১৫দিন সময় দিতে হবে!’

পারিশ্রমিক বেশি দাবি করার পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে মাহি বলেন, ‘৬ ও ৭ মে তারা শিডিউল চেয়েছিলেন। কিন্তু আগে থেকেই আমি এই দুটি তারিখে স্টেজ পারফরমেন্সের জন্য বুকড ছিলাম। অ্যাডভান্সও নিয়েছিলাম। ‘মনে রেখো’ টিমকে বলেছিলাম যদি তাদেরকে সময় দিতে হয় তাহলে অ্যাডভান্সটা ফেরত দিন। তারা রাজি হয়নি। এর পরপরই আমার অন্য ছবিগুলোর শিডিউল দেওয়া। আমি কিভাবে সময় দেবো?’

অনুমতি ছাড়া ভারতীয় টেকনিশিয়ানদের নিয়ে কাজ করায় ছবির কাজ বিঘ্নিত হয়। সে নিয়ে মাহি জানান, এ নিয়ে তারাই চাপের মধ্যে ছিলো। তিনি নিজে কোনো শর্ত আরোপ করেননি। ইন্দোনেশিয়ার বালি ও ভারতের দার্জিলিংয়ে ছবিটির শুটিং হবে এমন কথা দিয়েছিলেন প্রযোজক। কিন্তু পরে তারা অনুমতি পাচ্ছেন না বলে জানান।

মাহি এই ব্যাপারে বলেন, ‘আমার ইচ্ছে ছিলো যে, অনেকদিন পর যেহেতু ঈদে আমার ছবি মুক্তি পাবে, তাই লোকেশনে নতুনত্ব থাকলে ভালোই হবে। কিন্তু তারা কথা রাখছেন না।’

উল্লেখ্য, মাহি এখন ব্যস্ত মুস্তাফিজুর রহমান মানিকের ‘জান্নাত’ ছবির শুটিং নিয়ে। ছবিটির শুটিংয়ে অংশ নিতে স্বামী অপুসহ মাহি এখন বান্দরবানের পথে।

কমেন্টস