উৎসবমুখর পরিবেশে বিএফডিসির নির্বাচন

প্রকাশঃ মে ৫, ২০১৭

বিডিমর্নিং বিনোদন ডেস্ক-

বিএফডিসিতে চলচ্চিত্রের নবীন-প্রবীণ শিল্পীদের ঢলে শুক্রবার সকাল ৯টা থেকেই উৎসবমুখর পরিবেশে শুরু হয় নেতা নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম। বেশ উৎসবমুখর পরিবেশে সুশৃঙ্খলভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কারও কাছ থেকে কোনও অভিযোগ পাওয়া যায়নি। ২০১৭-১৮ সালে বাংলাদেশ শিল্পী সমিতির নেতৃত্বে কারা আসছেন তা জানা যাবে সন্ধ্যা পেরুলে। ভোট গ্রহণ চলবে বিকাল ৫টা নাগাদ।

উৎসবমুখর পরিবেশে বিএফডিসির নির্বাচন

এবারের নির্বাচনী লড়াইয়ে আছেন ওমর সানী-অমিত হাসান, মিশা সওদাগর-জায়েদ খান ও ড্যানি সিডাক-ইলিয়াস কোবরা প্যানেল।
২১টি পদের বিপরীতে মোট ৫৭ জন প্রার্থী পাঞ্জা লড়ছেন এবার। সানী-অমিতের প্যানেল থেকে ২০ জন, মিশা-জায়েদ খানের প্যানেল থেকে ২১ জন, ড্যানি-কোবরার প্যানেল থেকে ১৪ জন ও স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন ২ জন প্রার্থী।নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যানের হিসেবে আছেন চলচ্চিত্র পরিচালক মনতাজুর রহমান আকবর জানান, ‘এবার মোট ভোটারের সংখ্যা ৬২৪ জন। তিনি আশা করছেন, রাতের মধ্যেই বিজয়ীদের নাম ঘোষণা সম্ভব।’

উৎসবমুখর পরিবেশে বিএফডিসির নির্বাচন

এদিকে প্রথমার্ধে ১৭০ জনের মতো ভোটারের ভোট জমা পড়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন শাবনাজ-নাঈম, অনন্ত জলিল-বর্ষা, রুবেল, মৌসুমী, পপি, কাজী মারুফ, টেলি সামাদ, রেসীসহ অনেকেই।

কাকতাল হলেও সত্যি সকালে ভোট গ্রহণ শুরুর খানিক পরেই প্রায় কাছাকাছি সময়ে এফডিসিতে পা রাখলেন চলতি সময়ের সবচেয়ে আলোচিত দুই নায়িকা অপু বিশ্বাস এবং বুবলী! একজন দশটা বাজার মিনিট পাঁচেক আগে। অন্যজন ঠিক দশটায়। না, কেউ কারও মুখোমুখি হননি। কারও সঙ্গে তেমন কথাও বলেননি। দু’জনেই ঝটপট ভোট দিয়ে চোখের পলকে যে যার পথে বেরিয়ে পড়েন। সম্ভবত, কেউ কারও মুখোমুখি পড়তে চাননি তারা। তবে অপু এফডিসি ছাড়ার আগে ওমর সানীর মুঠোফোনে একটি সেলফি তুলেছেন তার প্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমীকে জড়িয়ে। এটুকুই।

উৎসবমুখর পরিবেশে বিএফডিসির নির্বাচন

এদিকে এই দুই নায়িকার প্রধান নায়ক শাকিব খান এসেছেন প্রথমার্ধ ভোট গ্রহণ শেষে। বেলা তখন সোয়া একটা। চলছিল নামাজের বিরতি। শাকিব এসেই জুমার নামাজে অংশ নিলেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ৩০ জানুয়ারি শিল্পী সমিতির বর্তমান কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সভাপতি পদে চিত্রনায়ক শাকিব খান, সহ-সভাপতি পদে ওমর সানী এবং সাধারণ সম্পাদক পদে জয়লাভ করেন অমিত হাসান।

কমেন্টস