লাখো শ্রোতার কণ্ঠে অন্তর

প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৭

আরিফ চৌধুরী শুভ।।

সংগীত ভালো লাগে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। সংগীতের প্রতি অদম্য আসক্তিতে অনেকের শেষ পরিচয় মিলে সংগীতশিল্পী হিসাবে। ছোটবেলায় পড়াশুনার পাশাপাশি সংগীতের প্রতি এমন আসক্তি, সুর মিলিয়ে গাওয়ার চেষ্টা থেকে দর্শক দৃষ্টি কেড়েছেন উদীয়মান সংগীতশিল্পী ও রংপুরের সন্তান অন্তর রহমান। গত বছর লাকি আখন্দের করা ‘আগে যদি জানতাম’ গানের মিউজিক ভিডিও দিয়ে শ্রোতাদের দৃষ্টি কেড়েছেন তিনি। সংগীতের পাশাপাশি করছেন বিজ্ঞাপনের মডেলিং।

অন্তরের সুরে শ্রোতারা যে জাদু খুঁজে পেয়েছেন, তা দিয়েই আগামীর সংগীত জগতে পরিচিত হতে চান তিনি। অন্তরের সর্বাধিক সাড়া জাগানো মিউজিক ভিডিও’র সূত্রে কথা হলো তার সাথে। গল্পের শুরুটা ২০০৯ সালে। চ্যানেল আই সেরা কণ্ঠ প্রতিযোগিতায় সেরা ২০ এ স্থান করে নেন অন্তর। বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিয়মিত গানই ছিলো অন্তরের দর্শক দৃষ্টির প্রধান মাধ্যম। ২০১৪  সালে শিল্পী নির্জর ও কণার সাথে ‘গুণগুণ ওয়ান’ অন্তরের প্রথম যৌথ অ্যালবাম। ২০১৫ সালে ‘বৈশাখি এক্সপ্রেস’, ২০১৬ সালে ‘ভাবনা’ অ্যালবামসহ মোট ৩টি যৌথ অ্যালবাম বের করেন তিনি। এসব অ্যালবামে অন্তরের সেরা ৫টি শ্রোতাপ্রিয় গান হলো ‘না পাওয়ার ভয়, আলো, আগে জদি জানতাম, যদি আরেকটি বার, আমি তোমাকেই বলে দেব’। ২০১৭ সালে তার একক অ্যালবাম বাজারে আসবে বলে জানান অন্তর।

সংগীতের অনুপ্রেরণা অন্তরের স্কুল শিক্ষিকা মা সাহিদা পারভীনের কাছেই। বাংলাদেশ বেতারের শিল্পী খাদেমুল ইসলাম বশুনিয়ার হাতেই অন্তরের গানের হাতেখড়ি। তাই গুরুর প্রতি কৃতজ্ঞতা অন্তরের আজীবন। তবে অন্তরের মুখে শিল্পী কাজল এর প্রতি বিনয়ীতাই বলে দিচ্ছে তার সহযোগিতার কথা। যে ছড়াগান দিয়ে অন্তরের সংগীত জীবন শুরু, সেই অন্তর এখন ফোক, আধুনিক, দেশাত্ববোধক গানে দর্শক মাতান।

বর্তমানে অন্তর তার সংগীত জীবন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। সমাজ সেবার জন্যে সংগীতকে ক্যারিয়ার হিসাবে বেছে নিয়েছেন অন্তর। সংগীত দিয়ে যে অর্জন হবে তা ব্যয় করবেন সামাজিক কাজে এমন স্বীকারোক্তিই শোনালেন অন্তর। তিনি জানান, ‘কোটি টাকা দিলেও সংগীত থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে পারবে না আমাকে’। আমৃত্যু শ্রোতার ভালোবাসা নিয়ে মরতে চাই সংগীত দিয়ে।

Advertisement

কমেন্টস