পরিচালক আমাকে ঘোরের মধ্যে রেখেছিলেনঃ আরিফিন শুভ

প্রকাশঃ জুন ২৪, ২০১৬

ছবিঃ আবুল বাশার/ বিডিমর্নিং

ঢাকাই চলচ্চিত্রের শীর্ষ অভিনেতাদের একজন আরিফিন শুভ। র‍্যাম্প মডেল দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও সুঠাম দেহ, বলিষ্ঠ কণ্ঠ এবং অসাধারণ অভিনয়ে খুব কম সময়েই দর্শকহৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। যে কোন চরিত্রের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিয়ে উপহার দিচ্ছেন একের পর এক জনপ্রিয় ছবি। প্রিয় অভিনেতার চলমান ক্যারিয়ার এবং ব্যক্তি শুভকে নিয়ে কথা হলো বিডিমর্নিং এর সাথে। সাক্ষাতে ছিলেন নিয়াজ শুভ-

কেমন আছেন?

আরিফিন শুভঃ ভালো।

বর্তমান কাজের ব্যস্ততা?

আরিফিন শুভঃ ‘নিয়তি’র কাজ শেষ করলাম। ইন্ডিয়াতে রিলিজ হয়ে গেছে। আমাদের এখানে আগস্টে হবে। ‘ঢাকা অ্যাটাক’র সত্তর শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ‘প্রেমী ও প্রেমী’ করছি।

ঈদের প্ল্যান কি?

আরিফিন শুভঃ এবারের ঈদে মনে হয় দেশে থাকা হবে না। এখনো বেশ ক’দিন বাকি আছে দেখা যাবে কি করা যায়।

ছোটবেলার ঈদের মজার কোন ঘটনা…

আরিফিন শুভঃ হ্যাঁ একটা ঘটনা খুব মনে পড়ে। একবার ঈদের আগের রাতে আমাদের বাসার টিভি নষ্ট হয়। তখন আমি চাচার বাসায় যাই টিভি দেখার জন্য। কখন ঘুমিয়ে পড়ি নিজেও জানি না। সকালে উঠার পর চাচি আমাকে একটা পাঞ্জাবি দিয়ে বলে এটা তোর চাচার ছোটবেলার পাঞ্জাবি। এটা পড়েই নামাজ পড়ে আয়। আমি বিশ্বাস করেই নিয়েছিলাম সেটা চাচার পাঞ্জাবি। কিন্তু পরে জানতে পারি আমি ঘুমিয়ে পড়ার পর সেই রাতেই তারা আমার জন্য নতুন পাঞ্জাবি কিনে নিয়ে আসে। সত্যিই সেটা খুব ভালো লাগার স্মৃতি।

ছবিঃ আবুল বাশার/ বিডিমর্নিং

চলচ্চিত্রের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগকে আপনি কিভাবে দেখছেন?

আরিফিন শুভঃ বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে ছবি নির্মাণ দু’দেশের জন্যই ভালো। দুই দেশের ভাষা, সংস্কৃতির যথেষ্ট মিল রয়েছে। তবে ছবি মুক্তির ক্ষেত্রে দুই দেশের সামঞ্জস্য বজায় রাখতে হবে। একটা ছবি বাংলাদেশের একশোটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেলো আর সেটি ভারতের ত্রিশটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেওয়া হবে, এমনটা হলে সেটা মোটেই ভালো ইঙ্গিত প্রকাশ করে না। দুই দেশেই সামঞ্জস্যতা থাকলে আমাদের সবার জন্যই ভালো।

নতুনদের সঙ্গে কাজ করতে কেমন লাগছে?

আরিফিন শুভঃ নতুনরা খুব ভালো কাজ করছে। তাদের প্রতিভাকে কাজে লাগাতে পারলে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে। সঠিক জায়গায় সঠিক শক্তি প্রয়োগ করতে হবে। এটা এমন একটা জায়গা যেখানে টিকে থাকতে হলে প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করতে হয়।

অভিনয়ে নিজেকে কতটুকু প্রস্তুত মনে হয়?

আরিফিন শুভঃ আমি নিজেকে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন বলবো না। আমি এখনও কাজ শিখছি। কোন থিয়েটার করে মিডিয়ায় আসি নি। যা করেছি বা করছি সম্পূর্ণই এখান থেকেই শিখেছি, শিখবো।

অভিনয় কি নিয়মিত করবেন?

আরিফিন শুভঃ আমার যখন যেটা ভালো লেগেছে তখন সেটা করেছি। টেলিভিশন ভালো লাগতো সেখানে কাজ করেছি, রেডিও ভালো লেগেছে সেখানেও কাজ করেছি এখন সিনেমায় কাজ করছি। যতদিন ভালো লাগা থাকবে কাজ করবো। যদি কোনদিন সেই ভালোলাগার জায়গাটা পরিবর্তন হয় তাহলে অভিনয় ছেড়ে দিবো। আসলে আমি ইচ্ছার বিরুদ্ধে কখনও কোন কাজ করি না।

ছবিঃ আবুল বাশার/ বিডিমর্নিং

বাংলা সিনেমার ব্যাপারে আপনার কি ধারণা?

আরিফিন শুভঃ আমাদের দেশের চলচ্চিত্র আগের চেয়ে বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে। ডিজিটাল অনেক যন্ত্রপাতির ব্যবহার বেড়েছে। আগের চেয়ে ভালো ভালো ছবি নির্মাণ হচ্ছে। অশ্লীলতার ছায়া থেকে ঢাকাই ছবির মুক্তি পর এখন নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে। আশা করি সামনে আরো ভালো ভালো ছবি নির্মাণ হবে।

পাইরেসির ধারা কি অব্যাহত আছে?

আরিফিন শুভঃ না; এখন পাইরেসির হার কমে গেছে। গুটি কয়েক সংস্থা ছাড়া এখন আর কেউ পাইরেসির শিকার হচ্ছেন না।

চলচ্চিত্রকে সামনে এগিয়ে নিতে কি পদক্ষেপ নেয়া উচিত বলে আপনি মনে করেন?

আরিফিন শুভঃ চলচ্চিত্রের মান উন্নয়নে সরকারের বিশেষ নজর দেয়া উচিত। একটা বিষয় আমাকে বেশ পীড়া দেয়। আমাদের দেশে হলের সংখ্যা কমে গেছে। দিন দিন এই পাল্লা আরো ভারী হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে চলচ্চিত্র ধ্বংসের দিকে যাবে। চলচ্চিত্রকে বাঁচিয়ে রাখতে হলের সংখ্যা বাড়াতে হবে। ছবি নির্মাণ করে যদি তা দেখানোর জায়গা না থাকে তাহলে ছবি বানিয়ে লাভ কি? হলের সংখ্যা বাড়াতে হবে এবং হলে সিনেমা দেখার মতো পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।

পরিচালনায় আসার ইচ্ছা আছে?

আরিফিন শুভঃ একদমই না। আমি পুতুলের মতো একটা কাজই করতে পারবো। একজন পরিচালকের অনেক দায়িত্ব। ছবি নির্মাণের প্রতিটি জায়গায় তার নজর রাখতে হয়। এত বড় গুরুদায়িত্ব আমি নিতে চাই না। তবে ছবি প্রযোজনায় ইচ্ছা আছে।

ছবিঃ আবুল বাশার/ বিডিমর্নিং

বিবাহিত জীবন কেমন কাটছে?

আরিফিন শুভঃ বিবাহিত জীবন নিয়ে আর কি বলবো…আসলে পরিবারকে ওভাবে সময়ই দিতে পারি না। সকালে কাজের জন্য বের হয়ে আসি ফিরতে ফিরতে অনেক রাত হয়ে যায়।

অবসর সময় কি করতে পছন্দ করেন?

আরিফিন শুভঃ ঘুম। আসলে অবসর খুব কম সময় পাই। তাই অবসর পেলেই ঘুমাই। কারণ না ঘুমালে আমি পরবর্তী কাজের জন্য শক্তি জোগাতে পারবো না।

আগের শুভর সঙ্গে বর্তমান শুভর অমিল…

আরিফিন শুভঃ দায়িত্ব অনেক বেড়ে গেছে। আগে বেশ অলস ছিলাম। এখন কাজ অনেক বেড়ে গেছে।কিন্তু এখন নিজেকে সবসময় কাজে ব্যস্ত রাখছি। দর্শকরাই আমাকে আজকের আরিফিন শুভ বানিয়েছে। তাদের অফুরন্ত ভালোবাসা পাচ্ছি।

ক্যামেরার সামনে প্রথম কাজের অভিজ্ঞতা…

আরিফিন শুভঃ প্রথম কাজ, নার্ভাস লাগাটাই স্বাভাবিক। পরিচালক এমন একজন ছিলেন যিনি বুদ্ধি করে আমাকে ঘোরের মধ্যে রেখেছিলেন। গল্পটা বলছিলেন না আমাকে। যে কারণে আমি নার্ভাস হবো সে সুযোগও পাইনি। যেহেতু আমার স্টেজে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে, টেলিভিশনে মডেলিংও করেছি তাই কোন এক অজানা কারণে ক্যামেরা ভীতিটা ছিলো না।

কাজের ক্ষেত্রে পরিবারের সাপোর্ট…

আরিফিন শুভঃ আসলে  আমি আমার পরিবার থেকে মোটেও সাপোর্ট পাইনি। তারা কখনো চায় নি আমি মিডিয়ায় কাজ করি। কিন্তু আমার ফ্রেন্ডরা আমাকে বেশ উৎসাহ জুগিয়েছে। মূলত ঘরের নয়, বাইরের মানুষের অনুপ্রেরণায় মিডিয়ায় আসা।

হাতে নতুন কি কি কাজ আছে?

আরিফিন শুভঃ ‘ভালো থেকো’ এছাড়া আর একটির পরিচালক ঠিক হয়নি এখনো শুধু প্রোডাকশন হাউজ জানি।

এতক্ষণ সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

আরিফিন শুভঃ আপনাকেও ধন্যবাদ।

Advertisement

কমেন্টস