রাবিতে ভিসি ও প্র-ভিসি না থাকায় প্রশাসনিক কার্যক্রম অচল

প্রকাশঃ এপ্রিল ২১, ২০১৭

আকরাম হোসাইন-

প্রশাসনের শীর্ষ দুই পদ এক মাস পেরিয়ে গেলেও নিয়োগ না হওয়ায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কার্যক্রম অচল হয়ে পড়েছে। গত ১৯ মার্চ ভিসি প্রফেসর ড. মুহম্মদ মিজানউদ্দিন এবং প্রো-ভিসি প্রফেসর চৌধুরী সারওয়ার জাহানের মেয়াদকাল শেষ হলেও বিশ্ববিদ্যালয়টি এখনও নতুন ভিসি, প্রো-ভিসি নিয়োগ হয়নি।

এদিকে শীর্ষ দুই পদ শূণ্য থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়টির অ্যাকাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। পরীক্ষার ফল প্রকাশ, পরীক্ষার কমিটি গঠন, মূল সনদপত্র উত্তোলন, ভর্তি কার্যক্রম, একাডেমিক কমিটির সভা, শিক্ষক-কর্মকর্তাদের ঋণ পাশ, অন্যান্য আর্থিক খাত, বিভিন্ন সভা-সেমিনার আয়োজনের অনুমোদন কাজ থমকে আছে।

সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন শিক্ষা ও গবেষণা এবং চিকিৎসা কাজে দেশের বাইরের যাওয়ার জন্য যেসব শিক্ষক-কর্মকর্তারা ‘নো অবজেকশন সার্টিফিকেট’ (এনওসি) পাওয়ার জন্য আবেদন করেছেন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় গাফিলতিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত ভিসি হিসেবে কাউকে দায়িত্ব না দেয়ায় কোনোভাবে এসব কার্যক্রম চালিয়ে নেয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তারা। এছাড়া ভিসি, প্রো-ভিসি পদশূণ্য থাকায় অন্য দফতরগুলো নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছে। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্টরা চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন।

সনদপত্র ও অ্যাকাডেমিক দফতরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মূল সনদপত্র পেতে ১৮০ জন শিক্ষার্থী আবেদন করেছেন। এর মধ্যে ১৫৩ টি সার্টিফিকেট পুরোপুরি প্রস্তুত, শুধুমাত্র ভিসির স্বাক্ষর না থাকায় দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। পুনঃভর্তি এবং বিলম্বে পুনঃভর্তি জন্য আবেদন করা অর্ধশত শিক্ষার্থীদের ফাইল আটকে আছে অ্যাকাডেমিক শাখায়।

এছাড়া বছরের শুরুর দিকে হওয়ায় বেশ কয়েকটি বিভাগের পরীক্ষা কমিটি গঠনের প্রস্তাব অনুমোদন ও ফল প্রকাশ একই কারণে আটকে আছে।

রাবির রেজিস্ট্রার দফতর সূত্র জানায়, বিদেশে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা কাজে যেতে এনওসি (নো অবজেকশন সার্টিফিকেট) পাওয়ার জন্য প্রায় অর্ধশত আবেদন জমা পড়ে আছে। ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মু. এন্তাজুল হক যাচাই-বাছাই করে তাতে অনুমোদনের সুপারিশ করলেও ভিসি পদ শূণ্য থাকায় তা অনুমোদন হচ্ছে না।

দেশের বাইরে চিকিৎসার জন্য পাসপোর্টের জন্য আবেদন করবেন এমন অনেক শিক্ষক-কমকর্তাও ছাড়পত্র চেয়ে দরখাস্ত করলেও অনুমোদন পাইনি।

ভিসি নিয়োগের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর সায়েন উদ্দিন আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইতিমধ্যে রাবির ভিসি ও প্র-ভিসি যথাক্রমে ড.রকিব আহমদ ও অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহার নাম রাষ্ট্রপতির কাছে প্রস্তাব করে পাঠানো হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি অনুমতি দিলেই ভিসি ও প্র-ভিসি পদে তাদের দু’জনের প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে এবং অচিরেই আমরা রাবিতে উক্ত পদে তাদের ফিরে পাব। তাদের নিয়োগ হলেই বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম সচল হয়ে উঠবে বলে আমি আশা করি।

 

Advertisement

কমেন্টস