আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বসতঘর নির্মাণের অভিযোগ

প্রকাশঃ জুলাই ২০, ২০১৮

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি:

ময়মনসিংহের ত্রিশালে আদালতের জারি করা ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে লোকবল নিয়ে বসতঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে চানু মিয়া নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। স্থানীয় নূরুল আমিনের সাফকাওলা জমি দখল করে চানু মিয়া জোরপূর্বক পাকাঘর নির্মাণের কাজ চালিয়ে গেলে গত সোমবার তিনি আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত ওই জমিতে ১৪৪ ধারা জারি করেন।

জানা যায়, উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়নের অলহরী পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত আজিম উদ্দিন তার সমুদ্বয় জমি ভাগবাটোয়ারা করে সন্তানদের নামে রেজিস্ট্রি করে রেখে যান। আজিম উদ্দিনের মৃত্যুর পর তার ছেলে এহতেশামুল হক চানু মিয়া ছোট ভাই নূরুল আমিনের জমি জোরপূর্বক দখল করে নেয়। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার গ্রাম্য সালিশ বসেছে। এতে কোন সমাধান মেলেনি।

নূরুল আমিনের অভিযোগ, সর্বশেষ সালিশে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কদ্দুস প্রভাবিত হয়ে চানু মিয়ার পক্ষে অবস্থান নিয়ে তাকে ঘর নির্মাণের পরামর্শ দেন। চেয়ারম্যানের সেল্টারে চানু মিয়া ওই জমিতে ঘর নির্মানের কাজ শুরু করেন। স্থানীয়ভাবে কারো সহযোগিতা না পেয়ে গত সোমবার ময়মনসিংহ বিজ্ঞ আদালতে যান নূরুল আমিন। পরবর্তী নির্দেশের পূর্ব পর্যন্ত আদালত ওই জমিতে ১৪৪ ধারা জারি করেন।

ওই আদেশের ভিত্তিতে বুধবার ত্রিশাল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। পরে থানা পুলিশ ম্যানেজ করে বুধবার ও বৃহস্পতিবার চানু মিয়া লোকবল নিয়ে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বসতঘরের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

নূরুল আমিন জানান, বৃহস্পতিবার দুইঘন্টা অপেক্ষার পর ওসি সাহেবের দেখা মিলে। বিস্তারিত বলার পর ওসি সাহেব আমাকে বললেন, বুধবার পুলিশ গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়ে এসেছে। তারপরও যদি কাজ করে আমরা কি লাঠি মারব।

নূরুল আমিনের দেখা করার বিষয়টি অস্বীকার করে ওসি জাকিউর রহমান বলেন, ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করলে আমাদের কি করার আছে। তবে এটা আইনগত ব্যবস্থা হবে।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কদ্দুস বলেন, স্থানীয় মুরুব্বিদের নিয়ে তাদের জমি বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। ঘর নির্মাণের বিষয়টি আমি জানি না।

কমেন্টস