বাস ভাঙচুরের ঘটনায় জাকানইবি শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ৩ মামলা

প্রকাশঃ মে ১৬, ২০১৮

ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ 

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে সদরের বেলতলীতে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের হামলায় দুই দিনে অর্ধশত যানবাহন ক্ষতিগ্রস্থ এবং এটিএন বাংলার প্রতিনিধি ও যমুনা টেলিভিশনের ক্যামেরাম্যান আহত হন। শিক্ষার্থীদের হামলায় আহত সাংবাদিক, ক্ষতিগ্রস্থ যানবাহনের মালিক ও শ্রমিকের পক্ষ থেকে পৃথক তিনটি মামলায় প্রায় দুই কোটি টাকা ক্ষতিপূরন দাবি করা হয়। প্রায় ৬ শতাধিক অজ্ঞাতনামা শিক্ষার্থীকে আসামি করা হয়েছে। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ১৩ মে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বেলতলিতে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি শিক্ষার্থী বহনকারী বাসের সাথে বালুবাহি একটি ট্রাকের সাথে ধাক্কা লাগে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসটির চালক ক্ষিপ্ত হয়ে ঐ ট্রাক চালককে মারধর করে। বাসে থাকা শিক্ষার্থীরা ট্রাক চালক ও জড়ো হওয়া এলাকাবাসীকে মারধর করে। একই সাথে ঐ বাসে থাকা কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মোবাইলফোনে বিশ্ববিদ্যালয়ে খবর দিলে মুহুর্তে কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থী  কতিপয় শিক্ষকের উপস্থিতিতে এসে বেলতলী এলাকায় আবারো হামলা করে।

এ ঘটনায় আহত সাংবাদিক শাহ আলম উজ্জল কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। যার নং ৬৬ তাং ১৪/৫/১৮ইং। মামলায় ২০/২৫ অজ্ঞাত শিক্ষার্থীদের আসামী করা হয়েছে। ক্যামেরা, মোবাইল ও মোটরসাইকেল ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় প্রায় লক্ষাধিক টাকা ক্ষয়ক্ষতির অভিযোগ করা হয়েছে। ত্রিশাল মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোকাম্মেল ত্রিশাল থানায় মামলা নং ২৭ তাং ১৫/৫/১৮ইং মামলা দায়ের করেছেন,মামলায় কমপক্ষে ৬০ অজ্ঞাত শিক্ষার্থীকে আসামী করেছে। মামলায় প্রায় অর্ধকোটি টাকা ক্ষয়ক্ষতির অভিযোগ করা হয়েছে।

অপরদিকে ময়মনসিংহ জেলা মোটর মালিক সমিতির সহ সভাপতি দীপঙ্কর সাহা বাদি হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় আরেকটি মামলা করেছেন, মামলা নং ৭৬ তাং ১৫/৫/১৮ইং। মামলায় প্রায় পাচ শতাধিক শিক্ষার্থীদের আসামী করা হয়েছে। এছাড়া মামলায় প্রায় দেড় কোটি টাকা ক্ষয়ক্ষতির অভিযোগ করা হয়েছে।

দোষীদের দ্রুত গ্রেফতার না করলে বৃহত্তর আন্ধোলন লাগাতার কর্মবিরতির ঘোষনা দিবে বলে জানিয়েছে পরিবহন মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ।

কমেন্টস