‘মা আমি বেঁচে আছি, ভালো আছি’ ছেলের মেসেজে আবেগাপ্লুত মমতাজ

প্রকাশঃ মার্চ ১৩, ২০১৮

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

‘মা আমি বেঁচে আছি, ভালো আছি।’ ছেলের এমন মেসেজে আবেগাপ্লুত নেপালে বিধ্বস্ত ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স বিমানের যাত্রীদের মধ্যে বেঁচে যাওয়া মেহেদী হাসান মাসুমের মা মমতাজ বেগম।

তিনি বলেন, ‘আমার ছেলে যখন নেপাল থেকে ফোন দেয় তখন আমি ধরতে পারিনি। পরে ফোনে মেসেজ দিয়ে জানায় ‘মা আমি বেঁচে আছি, ভালো আছি।’

মমতাজ বেগম আরও বলেন, ‘আমার ছেলে মোটামুটি সুস্থ। ছেলের বউ ও আমার ভাগিনার বউ হাসপাতালে। কিন্তু ভাগিনা (ফারুক) ও ভাগিনার ছোট মেয়ে (তামাররা) মারা গেছে। ওরা পাঁচজন ভ্রমণের উদ্দেশে নেপালে গিয়েছিল।’

তিনি বলেন, ‘আমার ছেলের বিয়ে হয়েছে এক বছর হলো। বউ ডাক্তারি পড়ে। তার ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হওয়ায় সিদ্ধান্ত নেয় ঘুরতে যাবে। তাই নেপালে ঘুরতে গিয়েছিল।’

মমতাজ বেগম বলেন, ‘আমার ছেলে ও ছেলের বউয়ের শারীরিক অবস্থা জানতে সকালের ফ্লাইটে সেখানে বউয়ের মা আর ছেলের পক্ষ থেকে বন্ধুরা নেপালে গিয়েছে। দুপুরে ছেলের বাবা ও আমার মেয়ের জামাই সেখানে যাবে। সবাই আমার ছেলে ও ছেলের বউয়ের জন্য দোয়া করবেন।’

প্রসঙ্গত, ভ্রমণের জন্য হিমালয়ের দেশ নেপালে গিয়েছিলেন গাজীপুরের নগরহাওলা গ্রামের একই পরিবারের পাঁচজন। সোমবার (১২ মার্চ) তাদের বহনকারী ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমানটি কাঠমান্ডু বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত হলে ঘটনাস্থলেই নিহত হন ফটোগ্রাফার ফারুক আহমেদ প্রিয়ক (৩২) ও তার মেয়ে তামাররা প্রিয়ক (৩)।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ফারুকের স্ত্রী আলমুন নাহার অ্যানি (২৫), ফারুকের মামাতো ভাই নগরহাওলা গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে মেহেদী হাসান মাসুম (৩৩) ও তার স্ত্রী সাঈদা কামরুন্নাহার স্বর্ণা আক্তার (২৫)।

ফারুক ও মেহেদী হাসান সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাই। ফারুক পেশায় একজন ফটোগ্রাফার। আর মেহেদী হাসান পেশায় ব্যবসায়ী ছিলেন।

উল্লেখ্য, গতকাল দুপুর ২টা ২০ মিনিটে ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সময় দুর্ঘটনায় পড়ে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিএস২১১ ফ্লাইটটি।  এতে এখন পর্যন্ত ৫০ জনের মতো মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে নেপাল পুলিশ। তবে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ বলছে, এখন পর্যন্ত ৪১জন নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। ঢাকা থেকে যাওয়া ৭৮ আসনের ড্যাশ প্লেনটিতে পাইলট-ক্রুসহ মোট ৭১ জন আরোহী ছিলেন।

কমেন্টস