মাটিরাঙ্গায় শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে এনজিও অফিস

প্রকাশঃ জানুয়ারি ১৪, ২০১৮

মোঃ আবুল হাসেম, মাটিরাংগা প্রতিনিধিঃ

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল ক্যাম্পাসে বিশেষায়িত এনজিও সংস্থা গ্রামীন ব্যাংকের কার্যক্রম চালানোর অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে এনজিও সংস্থার কার্যক্রম চালানোকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীর মধ্যেও তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, মাটিরাঙ্গা উপজেলার শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে গত চার বছরের বেশী সময় ধরে এ এনজিওটি কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। সরকারি অর্থে নির্মিত বিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাসে কোন ধরনের এনজিওকে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ভাড়া দেয়ার বিধান আছে কিনা সে বিষয়ে কিছু বলতে না পারলেও শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: মোস্তফা কামাল বলেন, ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত নিয়েই গ্রামীন ব্যাংকের কাছে স্কুল ক্যাম্পাসের একটি কক্ষ ভাড়া দেয়া হয়েছে।

২০১২ সাল থেকে শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে গ্রামীণ ব্যংকের কার্যক্রম চালানোর কথা স্বীকার করেন উক্ত ব্যাংকের শান্তিপুর শাখার ব্যাবস্থাপক মো: শামছুর রহমান। তিনি বলেন, আমরা ম্যানেজিং কমিটির নির্ধারিত ভাড়া ২ হাজার ৫শ টাকা পরিশোধ করেই আমাদের কার্যক্রম চালাচ্ছি। তবে বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এ ধরনের কার্যক্রম চালাতে পারেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাটিরাঙ্গা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: মোহতাছিম বিল্লাহ বলেন, শন্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোন ক্ষমতাবলে বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এমন একটি এনজিওকে কার্যক্রম চালানোর জন্য ভাড়া দিয়েছে তা তারাই ভাল বলতে পারবে।

এবিষয়ে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার গত বছরের ৫ ফেব্রুয়ারী ব্যাখ্যা চেয়ে প্রধান শিক্ষককে পত্র দিলেও প্রায় সাত মাস পর গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মো: মোস্তফা কামাল দায়সারা ভাবে জবাব দাখিল করেন। জবাবে তিনি বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বেসরকারী এনজিও গ্রামীন ব্যাংকের কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, প্রতিষ্ঠানের আর্থিক লাভের কথা বিবেচনা করেই ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্তে একটি কক্ষ ভাড়া দেয়া হয়েছে।

এদিকে গুমতি বিকে উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র দেয়ার সুপারিশ করায় মাটিরাঙ্গার শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গ্রামীন ব্যাংকের কার্যক্রম চালানোর বিষয়টিকে ধামাচাপা দিতে উল্টো ইউএনও বি.এম মশিউর রহমানের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো: জয়নাল আবেদীন খোন্দকার অনিয়মের অভিযোগ করেছেন।

কমেন্টস