ধনীর দুলালদের নতুন নেশা দেশাল!

প্রকাশঃ অক্টোবর ৩১, ২০১৭

বিডিমর্নিং ক্রাইম ডেস্ক-

বর্তমান সময়ে উঠতি বয়সি যুবকদের কাছে এক পরিচিত নাম দেশাল। বিশেষ করে উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদের কাছে এই দেশাল অনেক জনপ্রিয়। এখন অনেকের মনে প্রশ্ন দাঁড়াচ্ছে এই দেশাল কি?

দেশাল হচ্ছে এক ধরণের গাঁজা। যা চাষ হয় উত্তরবঙ্গের জেলা নাটোরে। এই গাঁজা দেশের অন্যান্য অঞ্চল থেকেও উন্নতমানের। অনেকেই একে নাটোরের গাঁজা বলেন। আবার এই গাঁজা ধনীর দুলালদের কাছে কালাইয়া, কালা ভুনা বা দেশাল নামে পরিচিত।

এই অঞ্চলের গাঁজার গন্ধ অন্যান্য অঞ্চলের গাঁজার গন্ধ থেকে আলাদা। আর এ কারণেই রাজধানীতে রয়েছে এর ব্যাপক চাহিদা।

জানা যায়, রাজধানীর বিভিন্ন মাদক স্পটে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের কড়া নজরদারির ফলে অনেকটাই আনাগোনা কমিয়েছেন উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানরা। তবে স্পটে গিয়ে গাঁজা সংগ্রহ না করলেও ফোনের মাধ্যমে নিজেদের ইচ্ছামতো জায়গায় পেয়ে যাচ্ছেন দেশাল নামের নাটোরের এই গাঁজা।

ইদানীং রাজধানীর বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্র ও যুবকদের কাছে দেশাল নামের এই গাঁজা পৌঁছে দিচ্ছে মাদক ব্যবসায়ীদের একটি সিন্ডিকেট।

সূত্রে জানা যায়, ব্যবসায়ীরা প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কখনও সরাসরি নাটোর টু ঢাকা আবার কখনও সিরাজগঞ্জের মামুদপুর, কান্দাপাড়া ও সুইপার কলোনি হয়ে রাজধানীতে নিয়ে আসে। নাটোরে এই গাঁজার ২৫ গ্রাম বিক্রি হয় ৪০০ থেকে ৫০০ টাকায়, সিরাজগঞ্জে ৬০০ থেকে ৮০০ টাকায় এবং ঢাকায় ঢুকে বিক্রি হয় ১০০০ থেকে ১৫০০ টাকায়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর বলছে, দেশাল নামের নাটোরের এই গাঁজা সম্পর্কে তাদের কাছে কোনো তথ্য নেই।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঢাকা মেট্রো উপ অঞ্চলের পরিচালক মুকুল জ্যোতি চাকমা বলেন, দেশের সব অঞ্চলের গাঁজা একই ধরনের হয়ে থাকে। গাঁজা ব্যবসার সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত তাদের বিরুদ্ধে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে। তারপরও দেশালের বিষয়ে আমরা খোঁজ নিয়ে দেখব।

প্রসঙ্গত, দেশে ১৯৮৭ সাল থেকে গাঁজার চাষ নিষিদ্ধ করা হয়। ১৯৮৮ সালে সব গাঁজার দোকান তুলে দেয়ার মাধ্যমে গাঁজার বেচা-কেনাও বন্ধ করা হয়। তবে সহজে বহন সুবিধার কারণে ‘হালকা মাদক’ হিসেবে পরিচিত গাঁজার বিস্তার কমেনি।

কমেন্টস