এবার জোর করে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পাঠাচ্ছে ভারত

প্রকাশঃ অক্টোবর ১৩, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

মিয়ানমারের পর এবার ভারতে অবস্থান করা রোহিঙ্গা সদস্যদের জোর করে বাংলাদেশে পাঠাচ্ছে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ)।

আজ শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে ভারত থেকে আসা নারী, পুরুষ ও শিশুসহ ১৮ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করেছে বিজিবি। এ নিয়ে গত তিন সপ্তাহে সাতক্ষীরার কলারোয়ার হিজলদী সীমান্ত দিয়ে অন্তত ৫৭ রোহিঙ্গা সদস্যকে পুশইন করা হয়েছে।

আটককৃত রোহিঙ্গারা হলেন- রুপিয়া খাতুন (৩৫), রোকেয়া (২৫), আবু তাহের (৩০), আব্দুর রহিম (২৬), রেহেনা বেগম (২৩), আলিম উদ্দীন (২২)।

বাকি সকলেই শিশু যাদের বয়স ১-৭ বছরের মধ্যে। এরা হলো- শাহরুখ খান, আজিজুর রহমান, জিয়ারুল ইসলাম, জুরাইদ, এনায়েতুর রহমান, মাহবুবুর রহমান, জুবায়ের, সুফিয়া খাতুন, রাশিদা বেগম, গুলশান আরা, সুমাইয়া বিবি, সালমা খাতুন।

আটককৃতদের বরাত দিয়ে বিজিবি সদস্যরা জানান, তারা দীর্ঘদিন যাবৎ ভারতের উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার স্বরুপনগর থানার গুন্নাছপুর এলাকায় বসবাস করতো। তারা নতুন রোহিঙ্গা নয় তাদেরকে ধরে বিএসএফ গতকাল রাতে হিজলদী সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে ঠেলে দিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) হিজলদী সীমান্ত চৌকির (বিওপি) নায়েক সুবেদার ওমর ফারুক জানান, রোহিঙ্গা সদস্যদের পুশইনের খবর পেয়ে তিনি ইউপি সদস্য নজরুলের বাড়িতে যান। তাঁদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন, বিএসএফ রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছে। তাঁরা তিন বছরেরও বেশি সময় ধরে ভারতে বসবাস করে আসছিলেন।

কলারোয়ার চন্দনপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার ভোরে আমার বাড়ির পাশে শিশুসহ কয়েকজন অপরিচিত লোকের ঘোরাফেরা করতে দেখে তাদের পরিচয় জানতে চাই। এসময় তারা মিয়ানমারের নাগরিক এবং ভারত থেকে তাদের বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানায়।

তিনি বলেন, মানবিক কারণে তারা এখন বিজিবি প্রহরায় আমার বাড়িতে আছে।

এর আগে গত বুধবার ১৯ রোহিঙ্গা সদস্যকে সাতক্ষীরার পদ্মশাঁকরা সীমান্ত এলাকা থেকে আটক করে বিজিবি। ৩ অক্টোবর সাত রোহিঙ্গা সদস্যকে কলারোয়ার হিজলদি সীমান্তের একটি বাজার থেকে আটক করা হয়। তারও আগে ২২ সেপ্টেম্বর প্রথম সাতক্ষীরার কলারোয়া বাসস্ট্যান্ড থেকে ১৩ জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছিল পুলিশ। আজ ১৮ রোহিঙ্গাসহ চার দফায় মোট ৫৭ জনকে আটক করা হয়।

সীমান্তের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, আরো বহু সংখ্যক রোহিঙ্গা সদস্য সাতক্ষীরা সীমান্ত অতিক্রম করার অপেক্ষায় রয়েছেন। তাদেরও সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশে পুশইন করতে সচেষ্ট রয়েছে বিএসএফ।

প্রসঙ্গত, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের নির্যাতিত রোহিঙ্গারা বিভিন্ন সময়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে প্রবেশ করে। প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গা ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে অবস্থান করছে। এদের মধ্যে ১৬ হাজার রোহিঙ্গা জাতিসংঘের নথিভুক্ত শরণার্থী। সেখানে তাঁরা নানা প্রতিকূলতা ও চরম দরিদ্রতার মধ্যেই বসবাস করছেন।

Advertisement

কমেন্টস