২ দিনের ব্যবধানে আবারো বাড়ছে পেঁয়াজের দাম

প্রকাশঃ অক্টোবর ১২, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

দু’দিনের ব্যবধানে আবারো হঠাৎ করেই দেশের বাজারে প্রতি কেজিতে পেঁয়াজের দাম  বেড়েছে  ১০ থেকে ১২ টাকা পর্যন্ত।দাম আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা।

রাজধানীর বিভিন্ন খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিকেজি দেশি পেঁয়াজের দাম ৫৫ থেকে ৬০ টাকা বেড়েছে।ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৫০ থেকে ৫৪ টাকা দরে। যা এক সপ্তাহ আগে ৩৮ থেকে ৪২ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল।

পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা জানান,কৃষকদের ঘরে দেশি পেঁয়াজের মজুদ নেই। এর ফলে আমদানি করা পেঁয়াজের ওপর নির্ভরতা বাড়ছে।আর ভারতে পেয়াজের দাম বাড়ায়। দেশেও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে আমদানি করা পেয়াজ।

রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্যমতে, ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দেশের বাজারে দেশি ও আমদানি করা দুই ধরনের পেঁয়াজের দামই বেড়েছে।টিসিবির  বাজারদরের তালিকা অনুযায়ী গত ১ মাসে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম প্রায় ৩০ শতাংশ বেড়েছে।

ঢাকার পাইকারি বাজার  শ্যামবাজারের পেঁয়াজ আমদানিকারক মো. মাজেদ বলেন, ভারতে পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা ছিল। এখন তা বেড়ে ৪০ টাকা ছাড়িয়েছে। এর সঙ্গে পরিবহন ব্যয়সহ অন্য খরচ যোগ করলে ৪৫ টাকা পড়ে। এতে গত কয়েক দিনে পাইকারী বাজারে বেড়ে ছে পিয়াজের দাম।

তিনি বলেন, ভারতে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পেওয়ায় বেশি দামে পেঁয়াজ আমদানি করেতে হচ্ছে। আবার একসঙ্গে বেশি আমদানির ফলে বাজারে দাম কমে যাওয়ায় তাদের লোকসান দিতে হয়েছে। এ কারণে দেশে ৫০ জন পেঁয়াজ আমদানিকারক থাকলেও অনেকেই পেঁয়াজ আমদানি করছেন না। বর্তমানে ৭ থেকে ১০ জন পেঁয়াজ আমদানি করছেন।

দেশে বছরে ২২ লাখ টন পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে ১৮ লাখ টন দেশে উৎপাদিত হয়। বাকিটা মূলত ভারত থেকে আমদানি হয়।ভারতে পেঁয়াজের দর বৃদ্ধি পাওয়ায় বর্তমানে ইন্দোনেশিয়া ও মিসর থেকে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম পড়ছে ৩২ টাকা। আর ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ৪৫ টাকা পড়ছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

Advertisement

কমেন্টস