তিনি বিশ্বনেত্রী, তিনিই প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশঃ সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৭

ছবিঃ মোহাম্মদ রানা

মশিউর জারিফ-

মিয়ানমারের রাখাইনে সেনাবাহিনী ও তাদের লোকজনের হাতে চরম বর্বরতা ও নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে লাখো রোহিঙ্গা। পালিয়ে আসা এসব রোহিঙ্গাদের বর্তমানে একমাত্র আশা ও ভরসা বাংলাদেশ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্বনেত্রীর দিকেই একদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন তারা।

21729604_1563335140394404_1082988293_o

বাস্তুহারা এসব রোহিঙ্গারা বিশ্বাস করেন যে, মানবিক নেত্রী শেখ হাসিনা তাদের নতুন জীবন দিয়েছে। ক্ষুধা নিবারণের জন্য দিয়েছে খাবার। আশ্রয় দিয়ে মাথা গোঁজার ঠাই করে দিয়েছে তাদের। মমতাময়ী এই মা’ই তাদের শেষ ভরসা। নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার ব্যবস্থাও করে দিবেন তিনি। এমনকি শান্তিপূর্ণভাবে সেখানে বসবাসের পরিবেশও তৈরি করে দিবেন এই বিশ্বনেত্রী।

PM-hasina-BG120170912160708

21729616_1563331627061422_685170192_o (1)

নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা এসব রোহিঙ্গাদের দেখতে আজ মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) কক্সবাজারের উখিয়ায় যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন তিনি।

21729629_1563331700394748_1809788951_o (1)

PM-hasina-BG220170912150202

আজ বেলা পৌনে ১২টার দিকে উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এসময় তাদের কষ্টের কথা শুনে আবেগপ্রবণ হয়ে চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি আবেগময়ী প্রধানমন্ত্রী। সেখানে অবস্থানরত নারী-শিশুদের পরম মমতায় জড়িয়ে ধরেন তিনি। মনযোগ দিয়ে তাদের ওপর চলা নির্যাতন ও দুঃখ দুর্দশার কথা সময় নিয়ে শোনেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় একজন দোভাষি পারস্পরিক কথাবার্তায় সহযোগিতা করেন।

21729656_1563335027061082_1799339302_o

এদিক ভিনদেশি এক প্রধানমন্ত্রীকে কাছে পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গারা। এসময় আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করে প্রধানমন্ত্রীর মঙ্গল কামনা করেন বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গারা।

21729751_1563335413727710_853000033_o

21905bf40ef8f89b65d255fdf3fd0470-59b7b4366574c

অপরদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে এক জনসভায় অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় দেশবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ও আমাদের মানুষদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়। মানুষ উপায় না পেয়ে ভারতে পালিয়ে যায়। এজন্য মানবিক দিক বিবেচনা করে আমরা তাদের আশ্রয় দিয়েছি। তাই আমাদের যতটুকু সামর্থ আছে সাহায্য করছি। এ বিষয়ে আমরা কমিটিও করে দিয়েছি। ‘বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের খাদ্য, আশ্রয় দেওয়া হচ্ছে।

21733699_1563335300394388_663584068_o

মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

21733717_1563334740394444_1980176763_o

PM-hasinaBG20170912161140

এদিকে গত কয়েক দশক ধরে ঠান্ডা মাথায় মিয়ানমারের সামরিক জান্তা সরকার ও সুচি সরকারের সুপরিকল্পিতভাবে নীরব ‘ জেনোসাইডের’ অন্তরালে হাজার হাজার রোহিঙ্গা মুসলমান নিহত হয়েছে, পালিয়ে বাঁচার সময় সাগরে ডুবে মারা গেছে। সুচি সরকার ক্ষমতায় আসার আগেই ভোটাধিকার ও নাগরিকত্ব কেড়ে নিয়ে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলমানদের রাষ্ট্রবিহীন জাতিতে পরিণত করা হয়েছে।

21729993_1563330940394824_1699071686_o

21742309_1563331290394789_1179715057_o

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা জানান, তাদের স্বজনদের কেউ মিয়ানমারের সেনাদের হাতে,কেউ নৌকা ডুবিতে প্রাণ হারিয়েছেন। আবার কেউ কেউ জঙ্গল ও পাহাড়ে হারিয়ে গেছেন। কারও কারও লাশ মিলেছে, কারও মেলেনি।

21733551_1563334613727790_1353677942_o

21733860_1563331510394767_435954790_o

জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) শুক্রবার সর্বশেষ জানিয়েছে, নতুন করে সহিংসতা শুরুর পর দুই লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এই সংখ্যা বেড়ে তিন লাখের উপরে যাবে। অর্থাৎ গত ১১ মাসে সাড়ে তিন লক্ষাধিক রোহিঙ্গা এরই মধ্যে বাংলাদেশে এসেছে। এই সময়ে মিয়ানমারে সহিংসতায় মারা গেছেন প্রায় এক হাজার রোহিঙ্গা।

21733556_1563331570394761_650298125_o

21742061_1563333237061261_381140279_o

উল্লেখ্য, গত ২৫ আগস্ট ভোররাত থেকে রাখাইনে সীমান্তরক্ষী পুলিশের সঙ্গে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) সদস্যদের সংঘাত শুরু হয়। এতে শতাধিক ব্যক্তি নিহত হন। এর মধ্যে ১২ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য ও বাকিরা আনসার সদস্য ছিল। এ ঘটনার পর মিয়ানমারের সরকারি বাহিনী বিতাড়ন অভিযান শুরু করে।

21755054_1563332747061310_1116715419_o

তারা রোহিঙ্গাদের গ্রামগুলোতে হানা দিয়ে সাধারণ মানুষকে লক্ষ্য করে নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করছে এবং ২৬শ বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে বলে মানবাধিকার সংস্থাগুলো অভিযোগ করেছে। অভিযানকালে অন্তত ৪০০ রোহিঙ্গা নিহত হন, যাদের বেশিরভাগই সাধারণ নিরস্ত্র রোহিঙ্গা। এদিকে অভিযানের মুখে প্রাণ বাঁচাতে প্রায় তিন লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

কমেন্টস