রাস্তা এখন বাসস্থান চিরিরবন্দরের মানুষের, লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী!

প্রকাশঃ আগস্ট ১৩, ২০১৭

মানিক হোসেন, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে টানা বর্ষণে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে তলিয়ে গেছে। তলিয়ে গেছে বিদ্যালয় মাঠ, খাল-বিল, ডোবা-নালা। ডুবে গেছে বিন্তীর্ণ ফসলের মাঠ। টানা বর্ষণের ফলে দুর্ভোগে পড়েছে শ্রমজীবি মানুষ।আশ্রয় নিয়েছে হাইওয়ে রাস্তায়। সেই সাথে খাবারে সংকটে পড়েছে এলাকার পানিবন্দী মানুষ।

বুধবার (৯ আগষ্ট) সন্ধ্যা থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টিপাত শনিবার পর্যন্ত মুষুলধারে বর্ষণের ফলে জনজীবনে স্থবিরতা নেমে এসেছে। অব্যাহত বৃষ্টিপাতের ফলে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার তেতঁলিয়া ইউনিয়নের বৈকন্ঠপুরের কয়েক হাজার পরিবারের বাড়ি-ঘর এখন পানির নিচে। প্লাবিত হয়েছে শরতপুর ইউনিয়নের বেশ কিছু এলাকা । এলাকার লোকজন গবাদি পশুসহ আসবাবপত্র নিয়ে বিভিন্ন উচুঁ জায়গায় অবস্থান করছে।

এদিকে গুচ্ছগ্রাম এর ২০টি পরিবারের বসতবাড়ি নদীর পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় আশ্রয় নিয়েছে মসজিদে।৭ নং আউলিয়াপুকুর ইউনিয়নের মহাদানী এলাকায় প্রায় ২শত বাড়ী পানিবন্দী হয়ে আছে। ৯ নং ভিয়াইল ইউনিয়ন বির্স্তীন এলাকা প্লাবিত হয়ে সেখানেও শতাধিক এর বেশী পরিবার দুর্বিসহ জীবন জাপন করছে। আলোকডিহি ইউনিয়নের প্লাবিত হয়েছে ৫ শতাধিকের বেশী ঘরবাড়ি। প্লাবিত হয়েছে আব্দুল ইউনিয়নের উপজেলা সদরসহ বেশ কিছু এলাকা।

অন্যদিকে আত্রাই, ইছামতি, বেলান, কাকড়া নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে খাল-বিল তলিয়ে জনবসতি পূর্ন এলাকায় প্রবেস করছে ফলে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। ভেঙ্গে যাচ্ছে নদীতে থাকা একমাত্র ভরসা বাশেঁর সাঁকোসহ বৈদ্যুৎতিক খুঁটি। আতংকে দিন কাটাচ্ছে এই সব এলাকার মানুষ। এখন পর্যন্ত কোন সরকারি ক্রান বা কোন সেচ্ছাসেবী সংগঠন সাহায্যেও হাত বাড়ায়নি। ফলে দুর্বিষহ জীবন-যাপন করছে এসব পানিবন্দী মানুষ।বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে নতুন করে আরও এলাকা প্লাবিত হতে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন অনেকে।

কমেন্টস