কুবিতে সাংবাদিককে ‘থাপড়ানো’র হুমকিতে প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি

প্রকাশঃ আগস্ট ১৩, ২০১৭

সাইফুল ইসলাম পলাশ, কুবি প্রতিনিধি-

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিক নেতাকে প্রক্টরের হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি।

রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক সমিতির সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যান্য সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। এ সময় ক্যাম্পাসে কর্মরত সাংবাদিকরা মুখে কালো কাপড় বেঁধে, ‘বিচার পাই না, তাই বিচার দাবিও করি না’, ‘বিচারহীনতার সংস্কৃতি বন্ধ করুন’ ইত্যাদি শ্লোগান সম্বলিত পোস্টার ও ব্যানার নিয়ে মানববন্ধনে অংশ নেন। মানববন্ধন শেষে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যকে এ সংক্রান্ত একটি অবহিত করণ স্মারকলিপি দেয় সাংবাদিক সমিতি। ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি করেছে শিক্ষক সমিতি।

জানা যায়, গত  ৯ আগস্ট কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কর্তৃক শিবির পেটানোর ঘটনা জানতে প্রক্টরকে ফোন দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকালের খবরের প্রতিবেদক ও সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: মতিউর রহমান। এ সময় তিনি ঐ সাংবাদিককে থাপড়িয়ে দাঁত ফেলে দেয়ার হুমকি দেন। এছাড়াও তাকে বেয়াদব বলে লাঞ্ছিত করেন প্রক্টর।

মুখে কালো কাপড় বেঁধে বিচার দাবি না করে শুধুই প্রতিবাদ জানিয়ে এ মানববন্ধন প্রসঙ্গে সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মুহাম্মাদ শফিউল্লাহ বলেন, ‘এর আগে বিভিন্ন সময়ে এ ক্যাম্পাসে সাংবাদিক লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটেছে। বিচার দাবি কারও হয়েছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোন দৃশ্যমান পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। উপরন্তু সাংবাদিকদের নিয়ে প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা বিরূপ মন্তব্য করছেন। বিচার না পাওয়ার ক্ষোভে এ ধরনের কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে।’

এদিকে প্রক্টরের হাতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, সাংবাদিক কেউই নিরাপদ নয় উল্লেখ করে তার পদত্যাগ দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘পূর্বে প্রক্টর শিক্ষকদেরও লাঞ্ছিত করেছেন।’

প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, ‘আমার বক্তব্য আংশিকভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।’

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আলী আশরাফ বলেন, ‘তোমরা লিখে আমার মানহানী করছ। এর বিচার কে করবে? আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় লেখার ক্ষোভ থেকেই প্রক্টর সাংবাদিকের সাথে এ আচরণ করেছে।’

কমেন্টস