সফল অস্ত্রোপচারের পরও ঝুঁকিমুক্ত নয় মুক্তামনি

প্রকাশঃ আগস্ট ১২, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক- 

মুক্তামনির অস্ত্রোপচার বেলা সোয়া ১১টার দিকে সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে তাকে বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের আইসিইউতে (নিবীড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র) রাখা হয়েছে। মুক্তামনির হাতের মাংসপিণ্ড সফলভাবে অপসারণ করা হলেও এখনই তাকে ঝুঁকিমুক্ত বলা যাচ্ছে না। পর্যায়ক্রমে আরো ৫-৬টি অস্ত্রোপচার করা লাগবে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের পরিচালক ডা. আবুল কালাম আজাদ শনিবার বেলা পৌনে ১২টায় সাংবাদিকদের এ সব কথা জানান।

মুক্তামনির অস্ত্রোপচার পরবর্তী অবস্থা জানাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের কনফারেন্স রুমে ব্রিফিংয়ে ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আজকের অপারেশন সফল হয়েছে। হাতটা রক্ষা করতে পেরেছি। হাত থেকে মাংসপিণ্ড সফলভাবে অপসারণ করা হয়েছে। তবে আমাদের আরো অনেক দূর যেতে হবে। মুক্তামনির আরো ৫-৬টি অপারেশন করতে হবে। তাকে তিন দিন আইসিইউতে রাখা হবে। শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে পর্যায়ক্রমে তার বাকি অস্ত্রোপচার করা হবে।’

আজকের অপারেশনে ১৫ জন সার্জন ও ৭ জন এনেসথেসিস্ট অংশ নেন বলেও জানান তিনি।

এরআগে, আজ সকাল সাড়ে ৭টা থেকে তার অপারেশনের প্রস্তুতি নিতে থাকেন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের ডাক্তারা। পরে সাড়ে ৮টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের তৃতীয় তলার অপারেশন থিয়েটারে তার অস্ত্রোপচার শুরু হয়।

এসময় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন মুক্তামনির বাবা-মায়ের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি তাদের আশ্বস্ত করে বলেন, ‘আপনারা কোনও চিন্তা করবেন না। আল্লাহকে ডাকেন। আমরা কাল নির্ঘুম কাটিয়েছি। কিভাবে অপারেশন হবে তা নিয়ে আমরা সবাই কথা বলেছি। পুরো দেশের মানুষের দৃষ্টি মুক্তামনির দিকে আছে। সবাই তার জন্য দোয়া করছে।’

প্রসঙ্গত, গত ১২ জুলাই ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি হয় মুক্তামনিকে। এতদিন মুক্তামনির রোগটিকে বিরল রোগ বলা হলেও ৫ আগস্ট তার বায়োপসি করার পর জানা গেছে মুক্তামনির রক্তনালীতে টিউমার হয়েছে যেটাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানে হেমানজিওমা বলা হয়ে থাকে।

কমেন্টস