জঙ্গি আস্তানায় অভিযান, রাস্তায় বোমা বিস্ফোরণে পুলিশ-সাংবাদিকসহ আহত ৩০

প্রকাশঃ মার্চ ২৫, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার শিববাড়ির জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চলাকালেই বাইরের রাস্তায় বিস্ফোরণের ঘটনায় কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছেন। একজন স্থানীয় সাংবাদিসহ আহত ৩০ জনকে নেওয়া হয়েছে সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। তাদের মধ্যে ৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আহতদের মধ্যে রয়েছেন স্থানীয় একটি দৈনিকের সাংবাদিক আজমল হোসেন (৩০), সিলেটে মেট্রোপলিটন পুলিশের সিটি এসবির ওসি মনিরুল ইসলাম, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের উপ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জান্নাতুল ফাহিম ও বেশ কয়েকজন পথচারী।

শনিবার সন্ধ্যার দিকে জঙ্গি আস্তানা ‘আতিয়া মহল’ থেকে ৩০০ গজ দূরে এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এদিকে সকাল থেকে শিববাড়ির ‘আতিয়া মহল’ নামক বাড়ির জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালাচ্ছে সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডো ও পুলিশের সোয়াট সদস্যদের সমন্বয়ে যৌথ বাহিনী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, আতিয়া মহল থেকে ৩০০ গজ উত্তরে জঙ্গিদের অন্য একটি দল এ আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে।

সন্ধ্যায় আতিয়া মহলের অদূরে অন্য একটি বাড়িতে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন যৌথ বাহিনীর কর্মকর্তারা। এরপর সাংবাদিকসহ অন্যরা বের হয়ে সামনে এগোনোর সময় জঙ্গিদের আত্মঘাতী বোমা হামলার খবর আসে।

এদিকে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালানো সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডো ও পুলিশের সোয়াট সদস্যরা এখনো আতিয়া মহলের ভেতর থেকে বের হয়ে আসেননি। শনিবার সকাল ৮টা ২৮ মিনিটে লে. কর্নেল ইমরুল কায়েসের নেতৃত্বে ‘অপারেশন টোয়ালাইট’ নামের অভিযানটি শুরু হয়েছে। ব্রিফিংয়ে ৭৮ জন বেসামরিক ব্যক্তিকে উদ্ধারের খবর জানিয়ে সেনা কর্মকর্তারা জানান, তারা ভালো আছেন, সুস্থ আছেন।

এর আগে শুক্রবার (২৪ মার্চ) ভোর থেকে উস্তার মিয়ার বাড়ি আতিয়া মহল ঘেরাও করে রাখে পুলিশ। ভেতর থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমা বিস্ফোরণ ও গুলি ছুড়লে জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানায় পুলিশ।

এতে জঙ্গিরা সাড়া না দেওয়ায় সোয়াট টিমের সঙ্গে অভিযানে যোগ দেয় সেনাবাহিনীর প্যারা-কমান্ডো ইউনিট। শুক্রবার সারারাত ধরে যৌথ বাহিনীর সদস্যরা বাড়িটি ও আশপাশের এলাকা ঘিরে রেখে অভিযানের প্রস্তুতি নেন। এরপর আজ শনিবার সকাল পৌনে ৯টায় সেনা বাহিনীর প্যারা কমান্ডো বাহিনীর নেতৃত্বে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ শুরু হয়। প্রবল ঝড় ও বৃষ্টির মধ্যেই এ অভিযান চালিয়ে আতিয়া মহলের দ্বিতীয় থেকে পাঁচতলা পর্যন্ত বসবাসকারী ২৮টি পরিবারের ৬৯ জন সদস্যকে উদ্ধার করে নিরাপদে সরিয়ে নিয়েছে সেনাবাহিনী।

 

Advertisement

কমেন্টস