ফরিদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে পানির সংকট, চরম দুর্ভোগে রোগীরা

প্রকাশঃ জানুয়ারি ১১, ২০১৭

হারুন অর রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি-

ফরিদপুর শহরের ঝিলটুলী মহল্লায় অবস্থিত চার’শ শয্যা বিশিষ্ট ফরিদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে গত চারদিন ধরে পানির সংকট বিরাজ করছে। ফলে ওই হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগী, রোগীর স্বজনসহ কর্মকর্তা ও কর্মচারিগণ চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়েছে।

সত্যতা নিশ্চিত করে ডায়াবেটিক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলেছে পৌরসভা থেকে পর্যাপ্ত পানি সরবরাহ না করায় গত শনিবার থেকে পানি নেই হাসপাতালে। তবে সংকট নিরসনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

ওই হাসপাতালে ডায়াবেটিক এর পরীক্ষা করতে আসা এক রোগী অভিযোগ করে জানান, আমি সোমবার সকালে ১১৯ নম্বর কক্ষে রক্ত পরীক্ষা করার জন্য যাই। গিয়ে দেখি কক্ষে পানি নেই। শৈাচাগারে গিয়েও ব্যবহার করতে পারিনি। প্রতিটি শৌচাগারই নোংরা আবর্জনায় পরিপূর্ণ হয়ে রয়েছে।

হাসপাতালের একটি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন এক রোগীর স্বজন জানান, গত শনিবার থেকে দিনের বেশির ভাগ সময় পানি সরবরাহ না করায় আমাদের চরম মানবিক দুর্ভোগের মুখে পড়তে হয়েছে। কর্তৃপক্ষকে জানিয়েও সমস্যার সমাধান পাইনি। অথচ অসুস্থ রোগী নিয়ে চলেও যেতে পারছি না।

২০০০ সালে ২৫টি শয্যা নিয়ে ফরিদপুর ডায়াবেটিক সমিতির তত্ত্বাবধানে যাত্রা শুরু করে এ হাসপাতালটি। বর্তমানে হাসপাতালটির শয্যা সংখ্যা বেড়ে চারশতে উন্নীত হয়েছে। সমিতির উদ্যোগে ওই একই ভবনে ডায়াবেটিক মেডিকেল কলেজ নামে একটি কলেজও স্থাপন করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মজিবুর রহমান বলেন, পৌরসভা থেকে ঠিকমত পানি সরবরাহ না পাওয়ায় এর আগে পৌরসভার পানি সরবরাহ কেন্দ্র থেকে সরাসরি পাইপ বসিয়ে হাসপাতালের পানির সমস্যার সমাধান করেছিলাম। এখন তাতেও কাজ হচ্ছে না।

এ এলাকার ভুগর্ভস্থ পানিতে মাত্রাতিরিক্ত আয়রণ থাকায় নলকুপ দিয়ে পানি তুলে সমস্যার সমাধান করা যবে না। সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য হাসপাতালের উদ্যোগেই পানি সরবরাহের প্লান্ট স্থাপন করতে হবে। আমরা সে লক্ষে কাজ করছি।

ফরিদপুর পৌরসভার মেয়র শেখ মাহতাব আলী মেথু বলেন, পানি শোধনে ব্যবহৃত পাথর (যা দিয়ে আয়রন কাটা হয়) পরিবর্তনের কাজ চলছে ফলে পানি সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, ডায়াবেটিক হাসপাতালের পানির চাহিদা অপরিসীম। পানি সরবরাহ কেন্দ্র থেকে সরাসরি সংযোগে আড়াই ঘন্টা সময় ধরে ওই হাসপাতালে পানি দিয়ে সংকট নিরসনের জন্য কাজ চলছে।

Advertisement

কমেন্টস