ঠাকুরগাঁওয়ে রিপন ‘হাত-পায়ে গাছের শিকড়’ রোগে ভুগছে

প্রকাশঃ আগস্ট ১৩, ২০১৬

রহিম শুভ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি-

হাত-পায়ে গুটির মতো রোগে ভোগা এক শিশুর সন্ধান মিলেছে ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার কেটগাঁও গ্রামে। তার পরিবার জানাচ্ছে, জন্মের তিন মাস পর থেকেই শিশু রিপন রায়ের এই রোগ দেখা দেয়। তার বয়স সাত বছর হয়ে গেলেও সুস্থ করতে পারেননি স্থানীয় চিকিৎসকরা।

আর্থিক অভাবের কারণে উন্নত চিকিৎসাও করাতে পারছেন না জুতা সেলাইয়ের কাজে নিয়োজিত তার বাবা মহেন্দ্র রায়। কেটগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র রিপন তিন ভাই-বোনের মধ্যে সবার ছোট।

রিপন রায় বলে, “আমার চলাফেরা করতে খুবই সমস্যা হয়। নিজে নিজে স্নান করতে পারি না। হাত দিয়ে ভাত খেতে পারি না। “বন্ধুদের সাথে খেলতে ও নিয়মিত স্কুলে যেতে পারি না।”

মা গোলাপী রাণী বলেন, “স্থানীয় ডাক্তার দেখাইজি, কিন্তু কোন সুস্থ হওয়ার নাম নাই। ডাক্তাররা বইলছে ঢাকা বা ভারত লেজান। কিন্তু হামার তো টাকাই নাই। কেমনে ঢাকাত লেগামো?” এ বিষয়ে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার হুমায়ুন কবির বলেন, “ধারণা করা হয় এটা নিউরন সংক্রান্ত রোগ। এই জাতীয় রোগীদের হাত-পা গাছের শেকড়ের মতো হয়। এই রোগটা আগে ছিল না।

“গবেষকরা এ রোগের কারণ জানতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো কারণ জানা যায়নি।”

আবুল বাজানদার নামে একজন হাতে-পায়ে ‘শিকড়ের মতো’ আঁচিল নিয়ে দেশ জুড়ে আলোচিত হয়ে ওঠেন। পরে তার চিকিৎসায় এগিয়ে আসে সরকার। গত ৩০ জানুয়ারি থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে তার। নয়বার অস্ত্রোপচারের পর তার দুই হাতের ১০ কেজি আঁচিলের কিছুই এখন নেই; পায়ের অবস্থাও তাই।

Advertisement

কমেন্টস