রোহিঙ্গা সংকট নাকি বাংলাদেশ সংকট

প্রকাশঃ সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭

রায়হান ওয়াজেদ চৌধুরী-

এই সময়ে শিরোনামোক্ত বিষয়ে কথা বলা আর রোহিঙ্গাদের কাটা গায়ে নোনের ছিটা দেওয়ার মতো হলেও কথাটি বলতে হচ্ছে। কারণ আমি একজন বাংলাদেশী নাগরিক হিসাবে কথাটি বলব। চলমান রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে সবচেয়ে বেশি কার্যকর ভূমিকা নেওয়া উচিত বাংলাদেশের। এই সংকটের সবচেয়ে বড় ধাক্কা সামলাতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। পরোক্ষ নয় সরাসরিভাবে এই সংকটে জড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করে বাংলাদেশে স্থান করে নিয়েছে।

মানবিকতার খাতিরে কিংবা শরণার্থী হিসাবে যাই বলুন না কেন এতো বিপুল পরিমাণ মানুষের দেখভাল করার ক্ষমতা বাংলাদেশের নেই। কিন্তু জীবন বাঁচাতে আশ্রয় নেওয়া এসব মানুষদের মৌলিক চাহিদা তথা অন্ন, বস্ত্র, চিকিৎসা, বাসস্থান পূরণের বিষয়টি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। সামান্য সাহায্য সহযোগিতায় এদের কতদিন চলবে। দীর্ঘমেয়াদী কোন ফল বয়ে আনবে। এইসব চিন্তাও করতে হবে বাংলাদেশ কে। এখন সংকটময় পরিস্থিতি ব্যক্তিগত কিংবা সামাজিক ও সেচ্চাসেবী সংগঠন সমূহ এগিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন সহায়তা নিয়ে। এইভাবে কতদিন যাবে? “অভাবে স্বভাব নষ্ট” একটা কথা আছে। এই রোহিঙ্গারা যখন নিজেদের প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাতে পারবে না। দৈনন্দিন জীবনে নানা টানাপোড়নে পড়বে। তখন তারা অপরাধে জড়িয়ে পড়তে পারে। বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড তথা চুরি ডাকাতি করতে পারে।

কারণ তাদের ভাষা, পোশাক পরিচ্ছদ, খাদ্যভ্যাস, চেহারা তথা সংস্কৃতি সবকিছু বাংলাদেশের বা চট্টগ্রামের সাথে মিল। সহজেই মানুষের সাথে মিশে যেতে পারে। এসব ভবিষ্যৎ সঙ্কাবোধ করছি। ঘটনা অন্যরকমও হতে পারে।

ইতিমধ্যেই এই নিয়ে নানামুখী সমাধানের তৎপরতা চালাতে শুরু করেছে মুসলিম প্রধান দেশ তুরস্ক, ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়া। কিন্তু অন্যতম মুসলিম প্রধান দেশ হিসাবে বাংলাদেশ কিছু করবে সেটা বাদ দিলেও এখন বাংলাদেশ নিজেই এই সংকটের একটা পক্ষ হয়েও তেমন গঠনমূলক কিছু করতে পারেনি। যা বাংলাদেশের জন্য নিরাপদ হবে। আবার রোহিঙ্গাদের অধিকার ফিরে পাবে। শুধুমাত্র রোহিঙ্গাদের আশ্রয়ের জন্য জায়গা দিতে পেরেছে বাংলাদেশ। এখনো সরকারিভাবে রোহিঙ্গাদের কোন মর্যাদা আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হয়নি। আমরা কিছু মিডিয়ায় দেখতে পাচ্ছি অনুপ্রবেশকারী আবার কিছু মিডিয়ায় দেখতে পাচ্ছি শরণার্থী। এইসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশের কূটনৈতিক প্রচেষ্টা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বিশ্ব নেতৃত্ব এবং আন্তর্জাতিক সংস্থা সমূহের সাথে যোগাযোগ করছে এরকম কোন কার্যকর উদ্যোগ এখনো দেখা যায়নি।

রোহিঙ্গা সংকট সমাধান নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণে বাংলাদেশ কি যথেষ্ট করছে? অনেকে মনে করেন রোহিঙ্গা সংকট সমাধান করতে বাংলাদেশ যেসব ভূমিকা নিয়েছে সেটা যথেষ্ট নয়। সুতরাং রোহিঙ্গা সংকট সমাধান যদি বাংলাদেশ কার্যকরভাবে মোকাবেলা করকে না পারে তাহলে ভবিষ্যতে বাংলাদেশ নিজেই সংকটে পড়তে পারে বলে মনে করেন অনেকেই।

লেখক: সাংবাদিক, মানবাধিকার ও আইন বিষয়ক গবেষক।

কমেন্টস