রাজধানীতে শীত বস্ত্রের ব্যবসা রমরমা

প্রকাশঃ জানুয়ারি ১১, ২০১৮

বিডিমর্নিং ডেস্ক:

পৌষের কুয়াশা আর শৈত্য প্রবাহ পুঁজি করে রাজধানীতে শীত বস্ত্রের ব্যবসা চলছে রমরমা । জেঁকে বসা শীতে হঠাৎ করেই ব্যবসায়ীদের বিক্রি বাড়িছে কয়েকগুণ। শীতের প্রকোপের সঙ্গে মানিয়ে নিতে হালকার চেয়ে ভারী শীতবস্ত্র কেনার দিকেই বেশি ঝোঁক ক্রেতাদের।

সারাদেশে জেঁকে বসেছে শীত। দেশের অন্য অঞ্চলের চেয়ে রাজধানীতে শীতের তীব্রতা বেশ কম থাকে। তবে, এবারের চিত্র ভিন্ন। পৌষের শেষে শৈত্য প্রবাহের ঝাঁকুনিতে কাঁপছে ঢাকার জনজীবন। উপভোগের শীত পরিণত হয়েছে অস্বস্তিতে।

কয়েকজন রিকশা চালক বলেন, শীতের মধ্যে ভোরে বের হতে পারি না। লোকজনও রাস্তায় কম বের হয়। পরিবার নিয়ে খুব কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছি।

কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, সকালে ক্লাস থাকলে খুবই কষ্ট হয়। এখন যে মাত্রায় শীত পড়তে তাকে দুর্ভোগ বলা যায়।

এমন অবস্থায় শীত নিবারণে ভিড় বেড়েছে শীতবস্ত্রের দোকানে। বড় মার্কেটের চেয়ে ফুটপাতের দোকানে ভিড় তুলনামূলক বেশি।

এক ক্রেতা বলেন, মেয়ের জন্য জ্যাকেট কিনতে এসেছি। দাম মোটামুটি সাধ্যের মধ্যেই বলা চলে।এদিকে  ফুটপাতের এক দোকানদার বলেন, শীত বাড়ায় আমাদের বিক্রি অনেক বেড়ে গেছে।

অন্যবছর কম্বলের দোকানগুলোতে এই সময়টা বেচাকেনা কম থাকলেও হঠাৎ শীতে বিক্রেতারা এখন পোয়াবারো। প্রত্যাশার চেয়ে বেশি বিক্রি হওয়ায় চোখে মুখে সন্তুষ্টির ছাপ। সাধ্যের মধ্যে কিনতে পারায় খুশি ক্রেতারাও।

এক বিক্রেতা বলেন, ক্রেতাদের মধ্যে কম্বলের অনেক চাহিদা। দিয়ে সাড়তে পারছি না।

এবার শীতে কদর বেড়েছে রুম হিটারের। বেচাকেনায় প্রত্যাশা ছাড়িয়েছে বিক্রেতাদের।

এক ক্রেতা বলেন, বাসায় মুরুব্বি আছে। শীত সহ্য করতে পারেন না, তাই রুম হিটার কিনতে এসেছি।

আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী দু-একদিনের মধ্যে শীত কিছুটা কমলেও জানুয়ারির শেষের দিকে আরো একবার দেখা দিতে পারে শৈত্য প্রবাহ। তাই এবার পুরো শীত মৌসুমে ভালো বিক্রির প্রত্যাশা বিক্রেতাদের।

কমেন্টস