নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে চামড়া

প্রকাশঃ সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৭

বিডি মর্নিং ডেস্ক:

রাজধানীতে কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনা শুরু হয়েছে। সরকার দাম নির্ধারণ করে দিলেও বেশি দামে লবণ ছাড়া চামড়া কিনতে হচ্ছে বলে দাবি আড়ৎদার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের।

তবে বিভিন্ন জায়গায় দেখা গেছে দামের তারতম্য। ব্যবসায়ীরা বলছেন লবণের বাড়তি দামের কারণে নির্ধারিত দামে চামড়া বিক্রি করতে পারবেন না তারা।

এবার রাজধানীতে গরুর লবণযুক্ত চামড়ার দাম ধরা হয়েছে প্রতি বর্গফুট ৫০ টাকা। ঢাকার বাইরে ৪০ টাকা। সারাদেশে খাসির লবণযুক্ত চামড়া বর্গফুটে ২০ টাকা ও বকরির চামড়া ১৫ টাকায় সংগ্রহ করবেন ট্যানারি মালিকরা।

চামড়ার দাম নিয়ে অভিযোগ রয়েছে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের। অভিযোগ স্থানীয়ভাবে চামড়া সংগ্রহকারিদের কাছ থেকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে লবণ ছাড়া কাঁচা চামড়া।

ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সরকারি নির্দেশ মতো চামড়া বিক্রি হচ্ছে না। তারা আরো জানান, যারা বাসা থেকে চামড়া কিনে আনেন তাদের সরকারের নির্ধারিত দাম বললে তারা বিক্রি করতে চায় না।

আড়ৎদাররা বলছেন, লবণযুক্ত চামড়া নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামেই বিক্রি করতে হবে তাদের। ব্যবসায়ীরা বলেন, আমরা শুধু টিভিতে শুনি লবন ২ লক্ষ টণ আসছে, ১ লক্ষ টণ আসছে। এক ব্যবসায়ী বলন, ১ সপ্তাহ আগে তিনি লবণ কিনেছেন ১৩২০ টাকায়। কিন্তু গতকাল কিনতে হওয়ছে ১৪৫০ টাকায়।

লালবাগের পোস্তায় চামড়া আসা শুরু করে বেলা ৩টার পর থেকে। চামড়া সংরক্ষণের জন্য ব্যবহৃত লবণের দাম এবার প্রায় দ্বিগুণ হওয়ায় ট্যানারি মালিকদের কাছে বেশি দামে চামড়া বিক্রির শংকা করছেন আড়তদাররা।

একজন আরতদার বলেন, যারা কুশীল ব্যবসায়ী প্রতি বারই তারা দাবী করেন তারা ন্যায্য দাম পান না। কিন্তু আমি বলব, যারা কুরবানী দেন তারাই সঠিক মূল্যটা পায় না।

চামড়া পাচার ঠেকাতে সরকারকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ট্যানারি মালিকরা।

কমেন্টস