বন্দুকের আঘাতে সরিয়ে দেয়া হলো নন-এমপিও শিক্ষকদের !

প্রকাশঃ জুন ১৩, ২০১৮

খাইরুল বাশার।।
এমপিওভুক্তির দাবিতে টানা চতুর্থ দিনের মতো প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করা নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীরা পুলিশি বাধায় সরে গিছেন। এখন তাঁরা  প্রেসক্লাবের  উল্টো পাশের রাস্তায় অবস্থান করছে। প্রেস ক্লাবের সামনে পুলিশের অবস্থান দেখা যাচ্ছে।
২৬ বারের এই অবস্থান কর্মসূচীতে কয়েকজন শিক্ষকদের সাথে পুলিশের ধাক্কাধাক্কি হয়। এসময় অনেকের পোশাক ছিড়ে যায়। এসময় ফরিদ উদ্দিন মনি, রুহুল আমিন নামে দুই জনকে আটক করলেও পরে ছেড়ে দেয় পুলিশ। এছাড়াও কয়েকজন আহত হয়েছেন।
অনেক শিক্ষক অভিযোগ করেছেন, তাদেরকে সরিয়ে দিতে পুলিশ বন্দুকের সামনের অংশ দিয়ে আঘাত করে।
এদিকে দাবি আদায় না হলে রাজপথেই ঈদুল ফিতর পালনের হুমকি দিয়েছেন আন্দোলকারী শিক্ষক নেতারা। তারা বলছেন, শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে আমাদের বিশ্বাস নেই। তিনি অনেকবারই এমন আশ্বাস দিয়েছেন। উনার ইচ্ছাও নেই এমপিও করার। একটা জনতুষ্টির জন্য উনি এমন আশ্বাস দেন। সময় হলে তা আবার ভুলে যান। এ কারণে শিক্ষামন্ত্রী আমাদের বাড়ি ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানালে আমরা তা প্রত্যাখ্যান করি।
নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়ন না হওয়ায় আমরা আবারও রাজপথে নামতে বাধ্য হয়েছি। ন্যায্য দাবি আদায়ে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শিক্ষক-কর্মচারীরা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান নিলেও পুলিশ শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা সৃষ্টি করছে। সরকারের অনুমতি নিয়ে আসতে বলছে। পুলিশ আন্তরিক নয় বলে কর্মসূচি পালনে বাধা দিচ্ছে। এ কারণে প্রেস ক্লাবের মূল সড়কের বিপরীত পাশে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছি। সকল বাধা উপেক্ষা করে আন্দোলন অব্যহত থাকবে।
ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ড. বিনয় ভূষণ রায় বলেন, শিক্ষামন্ত্রী গত ১০ বছর ধরে বলে আসছেন বাজেটে বরাদ্দ থাকলে এমপিওভুক্ত করা হবে। অথচ মন্ত্রী নতুন করে মিথ্যাচার করছেন যে বাজেটে বরাদ্দ জরুরি বিষয় নয়। এমপিওভুক্তির সুনির্দিষ্ট বক্তব্য বা গেজেট প্রকাশের ঘোষণা না আসলে শিক্ষক-কর্মচারীরা রাজপথে পবিত্র ঈদুল ফিতর পালন করবেন।

উল্লেখ্য, এমপিওভুক্তির দাবিতে নন এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর থেকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে লাগাতার কর্মসূচি শুরু করেন। নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের ডাকে টানা ওই অবস্থান ও অনশনের একপর্যায়ে গত ৫ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে তার তৎকালীন একান্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান সেখানে গিয়ে আশ্বাস দিলে তারা ঘরে ফিরে যান। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের যে বাজেট প্রস্তাব করা হয় সেখানে নতুন এমপিওভুক্তির বিষয়ে সুস্পষ্টভাবে কিছু বলা হয়নি বলে এই কর্মসূচি পালন করে আসছেন তারা।

কমেন্টস