মুক্তামণি আর নেই

প্রকাশঃ মে ২৩, ২০১৮

মেহেদী হাসান, খুলনা প্রতিনিধিঃ

বিরল রোগে আক্রান্ত সাতক্ষীরার মুক্তামণি আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

আজ বুধবার সকালে চিকিৎসকদের সব চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে মুক্তামণি না ফেরার দেশে চলে গেছে। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সদর উপজেলার নিজ গ্রাম দক্ষিণ কামারবায়সায় মুক্তামনির মৃত্যু হয়।

গত কয়েকদিন ধরেই জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলো মুক্তামনি। তার অস্ত্রোপচার হওয়া হাতটি ফুলে দুর্গন্ধ বের হচ্ছিলো। কথা বলতেও পারছিলো না শিশুটি। মুক্তামনির ক্ষতস্থানে নতুন করে পচন ধরেছিলো। আক্রান্ত ডান হাত থেকে বেরিয়ে আসছি সাদা পোকা আর রক্ত।

মেয়ের মৃত্যুর পর এখন আর কিছুই চাওয়ার নেই উল্লেখ করে মুক্তামনির শোকার্ত বাবা ইব্রাহিম হোসেন বলেন, ওর জন্য দেশের প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত চেষ্টা করেছেন। এমন কোনো কিছু নেই যা সরকার করেনি। আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। এখন মুক্তামনির মাগফিরাত কামনা ছাড়া আমার আর কিছুই চাওয়ার নেই।

জন্মের দেড় বছর পর শিশু মুক্তামনির দেহে একটি ছোট মার্বেলের মতো গোটা দেখা দেয়। এরপর থেকে সেটি বাড়তে থাকে। দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়েও তার কোনো চিকিৎসা হয়নি।

২০১৭ সালের জুলাইয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে মুক্তামনির বিরল রোগের খবর প্রকাশের পর টনক নড়ে স্বাস্থ্য বিভাগের। প্রথমে স্বাস্থ্যসচিব তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চিকিৎসার দায়ভার গ্রহণ করেন।

ওই বছরের ১১ জুলাই ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয় মুক্তামনিকে। সেখানে তার চিকিৎসায় গঠন হয় মেডিকেল বোর্ড। পরীক্ষা-নিরীক্ষায় ধরা পড়ে মুক্তা মনির হাত রক্তনালীর টিউমারে আক্রান্ত। কয়েক দফা অস্ত্রোপচার করে অপসারণ করা হয় তার হাতের অতিরিক্ত মাংস পিণ্ড।

মুক্তামণির চিকিৎসার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠনসহ সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছে ঢামেক কর্তৃপক্ষ।দীর্ঘ ছয় মাস চিকিৎসার পর হাতের অবস্থা কিছুটা ভালো হলে তাকে এক মাসের জন্য গ্রামের বাড়িতে আসার অনুমতি দেয়া হয়।

কমেন্টস