আটকদের মুক্তির পরেই শাহবাগ ছাড়ল শিক্ষার্থীরা

প্রকাশঃ মার্চ ১৪, ২০১৮

ছবি; আবু সুফিয়ান জুয়েল

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের জন্য পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলন রত ৫৩ শিক্ষার্থী আটকের পর ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। এর আগে ওই শিক্ষার্থীকে আটকের প্রতিবাদে শাহবাগে অবস্থান নেই শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীকে ছেড়ে দেয়ার পর শাহবাগ থেকে সরে গেছেন আন্দোলনকারীরা।

এর আগে তাদের অবস্থানের কারণে শাহবাগ মোড় দিয়ে যান চলাচল সীমিত হয়ে পড়ে। রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে তীব্র যানজট দেখা দেয়। দুর্ভোগে পড়েন অফিস ফেরত অসংখ্য যাত্রী।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রমনা থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় রাত সোয়া ৯টায় আটক শিক্ষার্থীদের ছেড়ে দেয়া হয়।

আটক শিক্ষার্থীদের ছেড়ে দেয়ার খবর শাহবাগে আন্দোলনকারীদের কাছে পৌঁছালে তারাও আনন্দ মিছিল সহকারে অবস্থান কর্মসূচি থেকে সরে আসেন। এসময় শিক্ষার্থীরা শাহবাগ থেকে রাজু ভাস্কর্য পর্যন্ত আনন্দ মিছিল করে।

এর আগে বুধবার বিকালে কোটা সংস্কারের আন্দোলন থেকে আটক ৩ জনকে আটক করে পুলিশ। এই ঘটনায় আটক শিক্ষার্থীদেরকে ছাড়াতে গেলে আরও ৫০ শিক্ষার্থী আটক করে রমনা থানা পুলিশ।

এদিকে অাটকের খবর ছড়িয়ে পড়লে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রায় তিনশতাধিক শিক্ষার্থীর মিছিল টিএসসিতে জড়ো হয়ে রমনা থানার উদ্দেশ্যে যায়। সেখানে থানার সামনে অবস্থান নেন তারা।

এছাড়া বিকাল ৫টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরও কয়েক’শ শিক্ষার্থী শাহবাগ মোড়ে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে আন্দোলনকারীরা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত শাহবাগে অবস্থান করবেন বলে ঘোষণা দেন তারা।

একই দাবিতে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনকারীরা জানান, ইতোমধ্যে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিবাদে মিছিল বের করা হয়েছে।

এর আগে বুধবার দুপুরে হাইকোর্টের সামনে আন্দোলনকারীদের ওপর লাঠিচার্জ করে পুলিশ। পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে একটি মিছিল নিয়ে শিক্ষার্থীরা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দিকে যাচ্ছিল। এতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিলেন।

মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, দোয়েল চত্বর হয়ে হাইকোর্ট চত্বরে গেলে আন্দোলনকারীদের আটকে দেয় পুলিশ। এসময় সেখানেই রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকেন আন্দোলনকারীরা। পরে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসসহ (বিসিএস) সরকারি চাকরিতে ৫৬ শতাংশ কোটা সংস্কার করে ১০ শতাংশে নামিয়ে আনাসহ পাঁচ দফা দাবিতে তারা পূর্ব ঘোষণা অনুসারে শিক্ষার্থীরা স্মারকলিপি নিয়ে যাচ্ছিলেন।

কমেন্টস