প্রভাষককে মারধরের ঘটনায় নারী কাউন্সিলর জেলে

প্রকাশঃ ডিসেম্বর ৬, ২০১৭

অমর ডি কোস্তা, নাটোর প্রতিনিধি:

নাটোরের বড়াইগ্রামে প্রভাষক সতীনকে কামড়ে ও বেধড়ক মারপিট করে আহত করার ঘটনায় আদালত বনপাড়া পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর শরীফুন্নেছা শিরিনকে (৩৬) জেল হাজতে প্রেরণ করেছে।

আজ বুধবার দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে কাউন্সিলর শিরিন উপস্থিত হয়ে জামিনের আবেদন করলে বিচারক মো. খোরশেদ আলম জামিন নামঞ্জুর করে তাকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় তিনি বনপাড়া পৌর শহরের কালিকাপুর এলাকায় তার সতীন বনপাড়া শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা অনার্স কলেজের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ফারহানা জামান সাথীর ঘরে গিয়ে সকল আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এতে প্রভাষক সাথী বাঁধা দিলে কাউন্সিলর শিরিন শরীরের বিভিন্ন স্থানে কামড়ে ও ইস্ত্রি দিয়ে আঘাত করে তাকে গুরুতর জখম করে। পরে প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

প্রভাষক ফারহানা জামান সাথী (৩৪) কালিকাপুরের ঔষধ ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান কল্লোলের প্রথম স্ত্রী এবং কাউন্সিলর শিরিন দ্বিতীয় স্ত্রী। এ ঘটনায় শনিবার রাতে প্রভাষক সাথী বাদী হয়ে বড়াইগ্রাম থানায় কাউন্সিলর শরিফুন্নেছা শিরিনসহ অজ্ঞাত ৪ জনের নামে মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বনপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মো. রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা করেছেন।

উল্লেখ্য, আগামী ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য বনপাড়া পৌরসভার নির্বাচনে শরীফুন্নেছা শিরিন কাউন্সিলর প্রার্থী। ঘটনার দিন গণসংযোগ চালানোর সময় স্বামীর সাথে মোবাইল ফোনে ঝগড়া করার পর পরই উত্তেজিত হয়ে সতীনের উপর হামলা চালায় ও ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে।

নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেন জানান, মামলা চলাকালীন সময়ে তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন।

কমেন্টস