‘২১ আগস্ট গ্রেনেড হমলার প্লিন্টার্স এখনো বয়ে বেড়াচ্ছি’

প্রকাশঃ আগস্ট ১২, ২০১৭

মোঃ রাশেদ-

একজন বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ। নারী রাজনৈতিক হিসেবে রাজনৈতিক অঙ্গনে রয়েছে তার সুনাম। বর্তমানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৪, ১৫ ও ১৮ নং ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর ও ধানমন্ডি মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী শিরিন গাফফার। বিডিমর্নিংকে শুনালেন তাঁর জীবনরে নানা গল্প, সাফল্য, চড়াউ উৎরাইয়ের কাহিনী।

রাজনীতিতে আশার গল্প বলতে গিয়ে শিরিন গাফ্ফার বলেন, আমি যখন ক্লাস ৮ এ পড়ি তখন আমি তেমন রাজনীতি বুঝতাম না। দেখতাম রাস্তা দিয়ে মানুষ দল বেধে নৌকার মিছিল নিয়ে যায়। আর সবার মুখে এক ধনি শুণে আমার খুব ভালো লাগতো। আর এইটা দেখে আমার খুব ইচ্ছে হলো আমিও রাজনীতি করবো, একদিন নির্বাচন করবো।

বিডিমর্নিংঃ- কিভাবে রাজনীতি শুরু করলেন ?

শিরিন গাফফারঃ- ‘আমি যে স্কুলে পড়েছি সে স্কুলে প্রায় ১২’শ শিক্ষর্থী ছিল। সেখানে আমারা দুটি দলে ভাগ করে আমরা নির্বাচন করি। আমাদের শিক্ষকরা আমাদের সাঙ্গে ছিলেন। আমি নৌকার পক্ষে ছিলাম এবং বিপুল ভোটে জয় লাভ করি। সেখান থেকেই আমার রাজনীতির সূচনা’।

আমি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। আমার চাচার জন্য একদিন আমি ভোট চাইতে গ্রামে গেলাম। সেখানে এক বৃদ্ধা মহিলা আমাকে বললেন, ‘আজ চাচার জন্য ভোট চাইতে আসছ। একদিন নিজের জন্যও চাইতে আসবা। সেদিন হয়ত আমি থাকব না’। ঐদিনই আমার জীবনের লক্ষ নির্ধারণ হয়ে যায়।

‘২১ আগস্ট গ্রেনেড হমলার প্লিন্টার্স এখনো বয়ে বেড়াচ্ছি’

বিডিমর্নিংঃ- রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হওয়ায় কোনো বাধার মুখে পড়তে হয়েছে? 

শিরিন গাফফারঃ- ‘রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হওয়ায় কোনো বাধার মুখে পড়তে হয়নি। তবে বিয়ের পর ভাবলাম হয়তো আর রাজনীতি করা হবে না। তবে স্বামীর ঘরে এসে দেখি তিনি নিজেও আপাদ মস্তক রাজনৈতিক লোক। তাই আর সমস্যা হয়নি। ১৯৮৪ সাল থেকেই তার হাত ধরে আামি রাজনীতি করি। তার কাছ থেকে জীবনে অনেক সহযোগিতা পেয়েছি’।

বিডিমর্নিংঃ- আপনি আইডল হিসেবে কাকে অনুসরণ করেন?
শিরিন গাফফারঃ- ‘ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস আমার আইডল। আমি রাজনীতিতে তাকে অনুসরণ করি’।

বিডিমর্নিংঃ- রাজনীতি করতে গিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনার সম্মুখিন হয়েছেন ?
শিরিন গাফফারঃ- ‘২১ আগস্ট গ্রেনেড হমলা। আমি তখন সেখানে ছিলাম। আমার পায়ে এখনো প্লিন্টার্স রয়েছে। এটি বয়ে বেড়াচ্ছি। চাইলেও এটিকে ভুলে থাকা যায় না। আমি সেসময় নিজের কথা না ভেবে অনেককে নিয়ে হাসপাতালে ছুটেছি।

বিডিমর্নিংঃ- দেশের সেবায় আপনি কিভাবে ভুমিকা রাখছেন ?

শিরিন গাফফারঃ- ‘আমি দির্ঘদিন মহিলা আওয়ামী লীগের হয়ে কাজ করেছি এর পর মূল দল আওয়ামী লীগে ছিলাম। এবং আমি ঢাকা দক্ষিণ সিটির ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্বও পালন করেছি। এভাবেই আমি দেশের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করে যাচ্ছি’।

বিডিমর্নিংঃ- আওয়ামী লীগের একজন কর্মি হিসেবে নিজেকে কতটুকু সফল মনে করেন?
শিরিন গাফফারঃ- ‘যাদি সফল না হতাম তবে দল আমাকে মনোনয়ন দিতো না। যেহেতু আমি নিজের স্বার্থকে না দেখে শুধু মাত্র জনগণের জন্য কাজ করি সেহেতু আমি সফল। কারণ মানুষ আমার উপর সন্তুষ্ট।

বিডিমর্নিংঃ- বর্তমান প্রজন্মের নারীদের প্রতি রাজনীতিতে আসার বিষয়ে আপনি কি বলবেন?
শিরিন গাফফারঃ- ‘তাদের প্রতি আমার একটাই আবেদন। তোমরা রাজনীতিতে আসো। দেশের জন্য দশের জন্য কাজ করো। সাধারণ মানুষের দু:খ সুখে সঙ্গি হও। আর এই বাংলাকে সোনার বাংলায় রুপান্তরিত করো’।

কমেন্টস