ফরিদগঞ্জের কুড়িয়ে পাওয়া রহস্যময় পাথর নিয়ে তোলপাড়

প্রকাশঃ জুলাই ২০, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

কুড়িয়ে পাওয়া এক রহস্যময় পাথর নিয়ে ফরিদগঞ্জে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। তিনমাস আগে মাটি কাটতে গিয়ে পাথরটি কুড়িয়ে পাওয়ার পর এতোদিন ঘরের সামনের সিড়ির পাটাতন হিসেবে ব্যবহার হলেও তা এক ব্যবসায়ী নিয়ে যাওয়ার পর থেকে  রহস্য দানা বাঁধে।

ঘটনাটি থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ানোর পর চক্রটি বাধ্য হয়ে পাথরটি ফেরত দিলেও এটি আসল পাথর নয় বলে দাবি করেছেন পাথরটি কুড়িয়ে পাওয়া শাহ্ পরান।

গত দু’দিন ধরে পুরো উপজেলায় রহস্যজনক পাথরটি ছিল টক অফ দ্য টাউন। উপজেলার পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের এ ঘটনা ঘটে। পাথরটি দেখতে উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজন ছুটে আসছে।

পাথরটি খুঁজে পাওয়া কড়ৈতলী গ্রামের ফজর আলী গাজী বাড়ির দিনমজুর শাহ্ পরান জানান, কয়েক মাস আগে বাড়ির পাশের ঠাঁকুর বাড়ির একটি পরিত্যক্ত স্থানে মাটি কাটতে গিয়ে একটি কালো রঙের পাথর খুঁজে পান।

পরে তিনি পাথরটিকে বাড়িতে নিয়ে এসে ঘরের সামনে সিড়ির পাটাতন হিসেবে ব্যবহার করছিলেন। গত শনিবার বিকালে হুমায়ুন নামে এক ব্যবসায়ী তাদের বাড়িতে এসে পাথরটি দেখতে পান। পরদিন সকালে তার মা সাজেদা বেগম পাথরটি দেখতে না পেয়ে বাড়ির লোকজনকে জানালে তারা হুমায়ুনকে সন্দেহজনক হিসেবে বাড়িতে ধরে নিয়ে আসলে তিনি পাথর চুরির কথা স্বীকার করলেও এটি অনেক দূরে রয়েছে বলে জানান।

এসময় স্থানীয় প্রভাবশালী ও যুবলীগ নেতা সোহেল পাটওয়ারীর নেতৃত্বে লোকজন এসে হুমায়ুন তাদের  জিম্মায় নিয়ে যায় এবং পাথরটি ফিরিয়ে দিয়ে যাওয়ার আশ্বাস দেয়।

ফরিদগঞ্জ থানার এসআই মমিন মঙ্গলবার বিকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে সোহেল ও হুমায়ুনকে পাথরটি থানায় জমা দেয়ার নির্দেশ দিলেও তারা পুলিশ চলে যাওয়া কিছুক্ষণ পরে  পাথরটি ওই বাড়িতে ফেলে রেখে যায়।

পাথরটি ফেলে রেখে যাওয়ার কথা প্রচারের পর লোকজন ছুটে আসে পাথরটি দেখলে তা আসল পাথর না বলে নিশ্চিত করে। তাদের দাবি মূল্যবান পাথরটি চক্রটি সরিয়ে ফেলে নকল আরেকটি দিয়ে গেছে।

ফরিদগঞ্জ থানার ওসি শাহ্ আলম জানান, লিখিত অভিযোগের আলোকে তদন্ত চলছে। পরে প্রকৃত ঘটনা যানা যাবে।

Advertisement

কমেন্টস