অ্যাসিডে নিক্ষেপ দুটি চোখ হারালো তমাল

প্রকাশঃ মে ১৯, ২০১৭

বিডিমর্নিং ক্রাইম ডেস্ক- 

‘আমি এখন অন্ধ। আমার সব শেষ। আমার সাথে যা হয়েছে তা যেন আর কারও সাথে না হয়। তাই অ্যাসিড নিক্ষেপকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। যাতে অন্যরা কেউ এ কাজ করতে আর সাহস না পায়।’ এই ভাবেই নিজের কষ্টের কথা গুলো বলছিলেন তমাল চন্দ্র দে।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালী থানাধীন গুডস হিলের সামনে অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার হন তমাল। অ্যাসিডে তার দুটি চোখ পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায়।

অপরাধীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বুধবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে করে তমাল।সংবাদ সম্মেলনে তমালের বাবা বাবুল চন্দ্র দে, মা অর্চনা রাণী দে, বোন তমা দে, দিদা পুষ্প রাণী বসাকসহ স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে তমাল বলেন, ‘আমাকে ডেকে নিয়ে পূর্বপরিকল্পিতভাবে অ্যাসিড ছোড়া হয়েছিল। আমি দুজনকে দেখেছিলাম। তারা অদ্ভুতভাবে আমার দিকে তাকিয়েছিল। এরপর আরেকজন যুবক গরম কিছু আমার মুখে নিক্ষেপ করে। ঝাপসা চোখে দেখেছিলাম পরনে ছিল চেক শার্ট। অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতে যখন পানি পানি চিৎকার করছিলাম তখন এক যুবক বলছিল, এনির সাথে প্রেম করার মজা দেখ। আমি এ ধরণের অ্যাসিড সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’

তমালের মা অর্চনা রাণী বলেন, ‘আমার ভাসুরের মেয়ের বিয়েতে গেলে তমালের সঙ্গে এনির পরিচয় হয়। তারা তিন-চার মাস একসঙ্গে ঘোরাফেরা করে। কিন্তু তারও পাঁচ বছর আগে থেকে আরেকজনের সঙ্গে মেয়েটির সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে তমালের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়েছিল। তমাল রাগের মাথায় তাকে থাপ্পড়ও মেরেছিল। সেই থাপ্পড়ের জবাব তারা দিয়েছে অ্যাসিডে। আমরা কোতোয়ালি থানায় মামলা করেছি। পুলিশ এখনো কোনো আসামিকে আটকও করেনি।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার ছেলের চোখ আর কোনো দিনও ভালো হবে না। আমার নিজের চোখ দিতে চেয়েছি, চিকিৎসক বলেছেন সেই সুযোগ নেই। চোখের কলকব্জা সব পুড়ে গেছে। আমি চাই অ্যাসিড সন্ত্রাসীরা যতই বিত্তশালী হোক না কেন তাদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা হোক।’

Advertisement

কমেন্টস