রম্য
‘ন্যায়বিচার পাইনি’ জানালেন নূর হোসেন, ঠিক কী হলে ন্যায়বিচার পেতেন ?

প্রকাশঃ জানুয়ারি ২২, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক- 

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলার মূল আসামি নূর হোসেনের ফাঁসির রায়ের পর ‘ন্যায়বিচার পাইনি’ বলে  জানিয়েছেন। তাহলে ন্যায়বিচার কি হতে পারত? এই বিষয়ে একটি রম্য লেখা লিখেছেন হুসাম আল বিল্লাহ।

সাতটা খুনের জন্য ফাঁসি দেয়াটা বড় বাড়াবাড়ি হয়ে যায়। যাবজ্জীবন তো বাড়াবাড়ি হয়ই। দশ-বারো বছরের জেলও অনেক বেশি। বরং সাত খুনের জন্য নূর হোসেনের শাস্তি হওয়া উচিত সাতে সাত মিলিয়ে সর্বোচ্চ সাত দিন! তাহলে গাণিতিক ভাবেও সেটা ন্যায়বিচার হতে পারত, সাতের সঙ্গে কী সুন্দর সাত মিলে গেল!

জেমস বন্ড ০০৭ চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ

সাত খুনের ‘ন্যায়বিচার’ হিসেবে নূর হোসেনকে জেমস বন্ড জিরো জিরো সেভেন হিসেবে অভিনয়ের সুযোগ দেয়া যেতে পারত। পরনে কালো কোট, সাদা শার্ট, কালো টাই এবং চোখে কালো সানগ্লাস। হাতে সাইলেন্সারসহ পিস্তল ধরা। কী মনোহর একটা দৃশ্য! তবে সে ক্ষেত্রে অবশ্য নূর হোসেনের নাম ‘নূর বন্ড’ না হয়ে হতো, ‘নূর ভণ্ড’!

শাস্তি স্বরূপ বাংলা সিনেমার ভিলেনের রোল করা

নূর হোসেন যেসব নৃশংস কাণ্ড ঘটিয়েছেন, তা বাংলা সিনেমার চেয়ে কোনো অংশে কম না! তাই ন্যায়বিচার হিসেবে নূর হোসেনকে বাংলা সিনেমার ভিলেনের রোলে অভিনয় করার ‘শাস্তি’ দেয়া যেতেই পারে। নূর হোসেন নাচতে নাচতে ডিপজলের ‘পুত কইরা দিমু আমি পুত কইরা দিমু!’ এর অনুকরণে বলবে, ‘গুম কইরা দিমু আমি গুম কইরা দিমুউউ!’

একত্রে গুম এবং খুনের জাতীয় রেকর্ড গড়ার সুবাদে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে ৭ দিন ৭ রাতের ট্রিপ

সাতটা খুন করা অত সহজ কাজ না। সাহস লাগে, পরিশ্রম লাগে। তাই এমন একটি কাণ্ড বাঁধানোর পর নূর হোসেনের প্রয়োজন ছিল বিশ্রামের। শাস্তি হিসেবে তাই তাকে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে ৭ দিন ৭ রাত ছুটি কাটানোর সুযোগ দিয়ে দেখা যেতে পারত! গায়ে হাওয়াই শার্ট, প্যান্ট এবং হাতে উকুলেলে নিয়ে নূর হোসেন সি-বীচে আধশোয়া হয়ে আছেন, ভাবুন তো ব্যাপারটা একটু!

 

কমেন্টস