নাসির দেশের বাইরে খেলতে গেলে এতগুলো গার্লফ্রেন্ড কার সঙ্গে কথা বলবে? তাই তাকে দলে রাখা হয়নি !

প্রকাশঃ নভেম্বরে ১৪, ২০১৬

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের নিউজিল্যান্ড সফরের দলে জায়গা পাননি নাসির। অথচ সদ্য শেষ হওয়া বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড সিরিজে দলে ফিরেই দারুণ ছন্দে দেখা গেছে নাসিরকে। কিন্তু কেন? কী কারণ থাকতে পারে নাসিরকে দলে না রাখার পেছনে? এই রহস্য উন্মেচনে ব্যাপক গবেষণা করে বেশকিছু কারণ উদ্ঘাটন করেছেন কাওসার আহমেদ আঁকাঃ রিদম-

নাসিরের নামের শুরুটাই না দিয়ে। সে দলে থাকলে দলে যে কোনো ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। তাই দলে কোনো প্রকার না সুলভ, অর্থাৎ নেতিবাচক প্রভাব এড়াতে নাসিরকে দলে নেয়া হয়নি।

নাসির সাধারণত দলের জন্য নির্বাচিত হলেও একাদশের বাইরে থেকে পানি টেনে থাকেন। কিন্তু নিউজিল্যান্ড একটি ঠাণ্ডা দেশ, সেখানে পানি টানার কাজ তেমন জরুরি নয়। এজন্য নাসিরকে নিউজিল্যান্ড সফরের দলে রাখা হয়নি। নিউজিল্যান্ড যেহেতু গুঁড়া দুধের জন্য বিখ্যাত, গুঁড়া দুধ টানলে তাও ব্যাপারটা ভেবে দেখা যেত!

পাপন সূত্রে, থুক্কু, গোপন সূত্রে জানা গেছে নাসিরের অনেক গার্লফ্রেন্ড আছে। কিন্তু নাসির দেশের বাইরে সিরিজ খেলতে গেলে এতগুলো গার্লফ্রেন্ড কার সঙ্গে কথা বলবে? কীভাবে কাটবে তাদের সময়? এসব কথা ভেবে একটি জনহিতকর পদক্ষেপ হিসেবেই নাসিরকে দলে রাখা হয়নি।

টিভি অ্যাডে দেখা যায়, নাসির অল্প একটু দৌড়িয়েই হাঁপিয়ে যায়। অতঃপর তাকে গ্লক্সোজ ডি খেয়ে তার ব্যাটারি রিচার্জ করতে হয়। যে খেলোয়াড় এত অল্পতেই হাঁপিয়ে যায়, তাকে তো দলে রাখার কোনো প্রশ্নই আসে না!

সে ফিল্ডিং করার সময় মাঝে মাঝে উড়ে গিয়ে ছোঁ মেরে ক্যাচ ধরে। কিন্তু ক্রিকেট হল ক্রিকেট, এইটা তো হাই জাম্প বা লং জাম্প না! এভাবে এক খেলার মধ্যে অন্য খেলার চর্চা করায় নাসিরের প্রতি বিসিবির বিরূপ মনোভাব তৈরি হতেই পারে!

নাসির বিড়ি বা নাসির গোল্ড সিগারেট এর সঙ্গে তার নামের মিল আছে। সে দলে থাকলে দলের ভেতর ধূমপানের প্রভাব পড়তে পারে। তাই তাকে দলে না নেয়া অত্যন্ত জরুরি!

সে মিথুন রাশির জাতক হলে তাকে দলে নেয়া যেত। সে যেহেতু মিথুন রাশির জাতক না, তাই তাকে দলে নেয়া হয়নি।

নাসিরের নামের মধ্যে ‘শুভাগত’ টাইপ নামে যে একটা শুভ শুভ ব্যাপার আছে, তেমন কিছু নেই! সুতরাং তাকে দলে রাখলে দলের সফর তেমন একটা শুভ নাও হতে পারে। সেই দিকটা বিবেচনা করেই তাকে দলে নেয়া হয়নি।

সুত্রঃযুগান্তর

কমেন্টস