সাংবাদিকতায় কেমন করে অানা যায় পেশাদারিত্ব?

প্রকাশঃ নভেম্বর ৫, ২০১৭

আবু ওবায়দা-

কেমন করে সাংবাদিকতায় অানা যায় পেশাদারিত্ব, নিশ্চিত হতে পারে পেশাটি? নিউজে কাজ করতে এসে দেখেছি, নিউজের প্রাণ প্রতিনিধিরাই। যদিও জানি পেশাগতভাবে ভাল নেই তারা। ব্যবস্থাপনার ছাত্র হিসেবে বলতে পারি কর্মী একটা সম্পদ। সে সম্পদ তৈরি করা আর যথার্থভাবে রিক্রটিং করাই হলো পেশাকে উন্নত করার প্রথম ধাপ। আর সে ধাপেই পিছিয়ে আছে সাংবাদিকতা।

যদিও দেশের সরকারি-বেসরকারি-পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়ানো হয় বিষয়টি। ফি-বছরই বেরুচ্ছেন শিক্ষার্থীরাও। তবে যথেষ্ঠ মেধা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ফেরত কেউই চান না চরম অনিশ্চয়তার এ পেশায় যুক্ত হতে। আর প্রতিনিধি হয়ে কাজ করার ইচ্ছে বেশীরভাগেরই থাকে চিন্তার বাইরেই।

কিন্তু এ কর্মক্ষেত্রে কাজ করার যথেষ্ঠ সুযোগ-পরিবেশ-পেশাদারিত্ব সৃষ্টি করা যেতে পারে।

১. পেশার প্রথম যোগ্যতা হতে পারে গ্রাজুয়েশন।
২. গ্রাজুয়েশন শেষ করার পর সাংবাদিকতা করতে চাইলে একটা পোস্ট গ্রাজুয়েশন কোর্স করতে হবে অথবা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অনার্স মাস্টার্স থাকতে হবে।
৩. পোস্ট গ্রাজুয়েশনই হোক আর অনার্স গ্রাজুয়েট হোক আর মাস্টার্সই করা থাক, যেকোন সংবাদ সংস্থায় কাজ করতে গেলে তাকে অবশ্যই একটি সাংবাদিক কাউন্সিল (বার কাউন্সিলের মত) থেকে সনদ নিতে হবে।
৪. সেন্ট্রাল সংবাদ সংস্থার অফিসের নিউজের কর্তা ব্যক্তিরা হতে হবেন নিউজ উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত। পাশপাশি হতে হবে এমবিএ কোর্স সম্পন্ন । কারন দেশের প্রায় প্রতিষ্ঠানে গড়ে ওঠেছে এমন মধ্যস্থতাকারি নিউজ ব্যক্তি যারা নিজেদের লাভেই দরকষাকষি করেন মালিকপক্ষের সাথে।
নিউজম্যান হিসেবে তারা যতটাই দক্ষকর্মী প্রশাসনে অদক্ষ ততটাই। তাই সংস্থার অফিসগুলোতে কর্মী অসন্তোষ, ছাটাই, দলাদলি নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। চরম অস্থিতিশীল উপরের পদগুলি। কাউকে কাউকে বড় বড় পদে মাত্র ২ -৩ দিন থাকতেও দেখা যায়। যা আখেরে ক্ষতি করে প্রতিষ্ঠানকে, প্রতিষ্ঠানের উৎপাদনে। বঞ্চিত হন ভোক্তা, অর্থাৎ যারা দর্শক,শ্রোতা, আর পাঠক।

বি. দ্র. সংস্থায় ক্যামেরাপার্সন, ভিডিও এডিটরসহ যারা সাংবাদিক হিসেবে সুযোগ বহন করেন তাঁদের বিষয়টিকেও সঠিক পরিকল্পনায় এনে নিশ্চিত করতে হবে পেশাটির সামগ্রিক অবস্থান।
বি. দ্র. একটা সময় ছিলো সংবাদ সংস্থা মানেই ছিলো শুধু প্রিন্ট মিডিয়া। আজ সেখান থেকে বেরিয়ে এসেছে দেশ। প্রিন্টিং মিডিয়াগুলোর বাইরে এখন কাজ করছে, অনলাইন পত্রিকা, অনলাইন পোর্টাল, স্যাটেলাইট চ্যানেল, অনলাইন চ্যানেল, আইপি টেলিভিশন। তাই যথার্থ ভাবে কর্মক্ষেত্র তৈরি করতে পারলে বেকারত্ব দূরীকরণে এ পেশা হতে পারে অগ্রণী।
বি. দ্র. মান ঠিক রাখতে বন্ধ করে দিতে হবে সব ডিপ্লোমা কোর্স অথবা একটা যথার্থ ছকে আনতে হবে কোর্সগুলোকে।

কমেন্টস