গাড়ি বহরে হামলা; কেন গেল না হেলিকপ্টারে?

প্রকাশঃ অক্টোবর ২৯, ২০১৭

রাজনীতি অর্থাৎ রাজার যে নীতি আর যারা রাজার নীতি নির্ধারণ করে তারা সাধারণত ক্ষমতাবান হয়, যা খুশি তাই করলেও বা বলে ফেললেও তাদের কোন বিচার নাই কারণ তা রাজনৈতিক বক্তব্য।

সম্প্রতি বেগম খালেদা জিয়া রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দিতে যাওয়ার সময় তার গাড়ি বহরে অতর্কিত হামলার শিকার হয় সাংবাদিকসহ দলের নেতাকর্মীরা। এ ছাড়াও রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে পথে যানজট সৃষ্টির করা হয়। এর বাইরে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের যে সব বক্তব্য দিচ্ছেন তা রাজনৈতিক শিষ্টাচার এর বাইরে বলে আমার বিশ্বাস।

তিনি বলেছেন, ‘খালেদা জিয়া রাজনীতি করতে যাচ্ছে, হ্যাঁ সত্যি তো রাজনীতিবিদদের কাজ তো রাজনীতি করা সে তো করবেই। আওয়ামী লীগ ও রোহিঙ্গা নিয়ে রাজনীতি করেছে তাহলে বিএনপি কি দোষ করল, সে ও তো রাজনৈতিক দল। সস্তা কথার রাজনীতি থেকে উভয় দলের সরে আসা উচিৎ। আবার গাড়ি বহরে হামলা এই তথ্য অবশ্যই সরকার বা তার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে ছিল, তাহলে তারা নিরব ছিল কেন? তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে এর পিছনের ইন্ধন কে দিল তাকে আলোতে নিয়ে আসেন। এই অবস্থা তৈরি করলে তো যে অর্থ দাঁড়ায় তা হল বহুত্ববাদকে অস্বীকার করা তার মানে রাজনৈতিকভাবে সরকার দল দেউলিয়া হয়ে গেছে। তা না হলে তো বিরোধীদলের নেত্রীর উপর হামলা কেন হয়?’

এবার আসা যাক হেলিকপ্টারে কেন গেল না? ৪০ মিনিটে চলে যেতে পারত কেন ১৫০ গাড়ি বহর নিয়ে যাওয়া? এমন দিক নির্দেশনা কি ওবায়দুল দিতে পারে। অনেকেই বলবেন এটা রাজনৈতিক বক্তব্য তবে আমি বলবো, আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতির পরিবর্তন হয় নাই, তাই এই দশা যে যা খুশি বলে ফেলে পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ নেই যার ফলে আমরা আজও প্রতিহিংসার রাজনীতি করি।

আগুনের রাজনীতি, বালুর ট্রাক, গাছের গুড়ি, আবার গাড়িতে হামলা। এত বছরেও আমরা নষ্ট রাজনীতি থেকে বের হতে পারি নাই। এই দায় রাজনীতিবিদদের নিতে হবে। তাদের মতো আমিও বলতে চাই শুধু রাজনীতি না করে জনগণের মঙ্গলের জন্য রাজনীতি করেন।

খাইরুল ইসলাম বাশার

গণমাধ্যমকর্মী

কমেন্টস