আপনি আপনার স্বামীর কততম স্ত্রী?

প্রকাশঃ নভেম্বর ১৭, ২০১৭

বিদেশে পড়তে গেলে নানা জাতি ও বর্ণের মানুষের সাথে পরিচয় হয়। আইন বিষয়ে ইংল্যান্ডে পড়তে এসেছি আমি কয়েকদিন হলো। প্রথম কিছুদিন কারও সাথে তেমন কথাবার্তা না হলেও, দুয়েকদিন যেতে না যেতেই ক্লাসের এশিয়ান সহপাঠীদের আবিষ্কার করতে শুরু করলাম।

আবিষ্কার প্রক্রিয়ার শুরুতেই আমার ক্লাসে একজন সম্ভাব্য মধ্যপ্রাচ্যের সহপাঠী পাওয়া গেলো। পরিচয়ে জানতে পারলাম, উনি সৌদি আরবের নাগরিক। আমি বাংলাদেশি জানার পর তিনি বিস্মিত হয়ে বললেন, ‘সৌদিরা বিশ্বাস করবে না যে, এত বাংলাদেশি ছেলে-মেয়ে বাংলাদেশ থেকে বিলেতে পড়তে আসে।’

প্রথমে ব্যাপারটা বুঝলাম না। উনি ব্যাখ্যা করলেন, সৌদিদের ধারণা বাঙালি মানেই সবাই গরীব এবং অশিক্ষিত। আমি কিছুটা অপদস্থ হলাম, তবে তখনই কিছু বললাম না।

দুইদিন পরের ঘটনা। কথাপ্রসঙ্গে তাকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘আচ্ছা আপনি কি বিবাহিত?’ উনি হ্যাঁ সূচক সম্মতি দেবার পর বললাম, ‘আপনি আপনার স্বামীর কততম স্ত্রী?’

উনি বললেন, ‘মানে! আমি আমার স্বামীর একমাত্র স্ত্রী। এই প্রশ্ন কেন?’

আমি বললাম, ‘বাংলাদেশে এটা কেউ বিশ্বাস করবে না যে সৌদি কোনো পুরুষের একটাই মাত্র স্ত্রী। বাংলাদেশিরা জানে সৌদিদের তের-চৌদ্দটা করে স্ত্রী থাকে!’

এরপর থেকে তিনি আমার সাথে আর কথা বলেন নি! তবে অচিরেই গিয়ে আলাপ করতে হবে একদিন। বলতে হবে, দুঃখিত সেদিন এভাবে কথা বলার জন্য। এমন স্টিরিওটাইপ ধারণা যে সত্যি না সেটা নিশ্চয়ই আমরা সবাই বুঝতে পারছি এখন। সকল দেশেই নানা ধরণের লোক থাকে। কিছু মানুষকে দেখেই পুরো দেশ সম্পর্কে এ রকম ধারণা করা আমাদের কারওই ঠিক না।

-সংগৃহিত

কমেন্টস