‘দেশে বছরে ইয়াবা সেবনে ব্যয় হচ্ছে ৭২ হাজার কোটি টাকা’

প্রকাশঃ জুলাই ২২, ২০১৮

আরিফুল ইসলাম আরিফ।।

বাংলাদেশে ৭০ লাখ মাদকসেবী আছে উল্লেখ করে র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ জানিয়েছেন, দেশে প্রতি বছর ৬০ লাখ মানুষ ইয়াবা সেবন করে যার বাজার মূল্য ৭২ হাজার কোটি টাকা।

‍র‌্যাব কর্তৃক নির্মিত মাদকবিরোধী বিজ্ঞাপন ‘চলো যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে’ এর প্রচারানুষ্ঠানের উদ্বোধনের সময় এক জরিপের উদ্ধৃতি দিয়ে এই তথ্য জানান র‌্যাব প্রধান। আজ রবিবার বিকাল ৪.৩০ টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এই উদ্বোধনের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রালয়ের নির্ধারিত মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে এখন পর্যন্ত র‌্যাবের অভিযানে ৭৬ হাজার মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। এছাড়া মাদক গ্রহণকারীদের সঠিক পথে আনতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

‘চলো যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে’ এই স্লোগানে আইনশৃঙ্খলা-বাহিনী কাজ করছে মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের জয়ী হতে হবে, আমরা বিজয়ী হব। এটা আমাদের চ্যালেঞ্জ। যদি আমরা এই মাদকবিরোধী অভিযানে হেরে যাই। তাহলে আমরা পথ হাড়িয়ে ফেলব।

মানুষ এখন ফেন্সিডিল ভুলে ইয়াবার দিকে ঝুঁকছে উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা কোন মাদক তৈরি করি না তবে আমরা এই মাদকের থাবা থেকে বের হতে পাচ্ছি না। আমাদের এই মাদক থেকে বের হতে হবে। কলম্বিয়ার মত মাদক সম্রাট দেশ যদি মাদক থেকে বের হতে পারে তাহলে আমরাও পারব।

মাদক ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসাদুজ্জামান বলেন, যারা মাদক ব্যবসা করছে তারা আত্মসমর্পণ করে সাধারণ জীবনে ফিরে আসুন।আত্মসমর্পণ করার পর নির্দোষ প্রমাণিত হলে আদালত তাদের ছেড়ে দিয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে চ্যালেঞ্জ না করে আত্মসমর্পণ করুন।

নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে চ্যালেঞ্জের ফলে অনেকে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, যাদের লাশ পাওয়া গেছে তাদের পরিবারও লাশ নিতে আসেনি। তাদের পরিবারের মতে মাদক ব্যবসায়ীরা দেশের শত্রু আমাদেরও শত্রু। এছাড়া অনেক জঙ্গি, জলদস্যু, মাদক ব্যবসায়ীরা আত্মসমর্পণ করেছে।

মাদকসেবীদের কাজ করতে সাংবাদিকদের আহ্বান জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যারা মাদক সেবন করে তাদের দূরে ঠেলা যাবে না। তাদেরকে শারীরিক ও মানসিক নিরাময় করতে হবে। এজন্য নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলা হচ্ছে। সাংবাদিক সমাজের পবিত্র দায়িত্ব মাদকবিরোধী প্রতিবেদন প্রকাশ ও প্রচারণা চালানো বলে তিনি মনে করেন।

মাদকবিরোধী বিজ্ঞাপনের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমরা মাদক অভিযান, বন্দুকযুদ্ধে যেতে চাই না। তাই এমন বিজ্ঞাপন তৈরি করেছি। বাংলাদেশের জায়গা আরও উন্নত করতে সকলের মাদকের বিরুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে হবে।  তাহলেই আমাদের দেশ একদিন উন্নত দেশে পরিণত হবে। আর সেই উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই যুদ্ধ অব্যাহত থাকবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ বলেন, গত ১৩ মে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রালয়ের মাদকবিরোধী অভিযানের নির্দেশের পর থেকে এখন পর্যন্ত ৮০ দিনে ১০২ কোটি টাকার মাদক আটক করা হয়েছে। পাশাপাশি ৬০ হাজার মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করা হয়েছে।

র‌্যাব প্রধান বলেন, মোবাইল কোটের মাধ্যমে ৮০ দিনে ৫ হাজার ৮শ’ জনকে সাজা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ৬ হাজার মাদক ব্যবসায়ীরা জেল হাজতে রয়েছে। তাদের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা আদায় করা হয়েছে।

র‌্যাব মহাপরিচালক জানান, গত ১ সপ্তাহে ৭ টি বাস আটক করা  হয়েছে। যার মধ্যে ৩ টি বিলাশবহুল বাস ছিল। আর এজন্য খুব শিগগিরি আমরা বাস মালিকদের সাথে বসব। তাদের সহযোগিতা ছাড়া এই অভিযান সম্পূন্ন করা সম্ভব না।

মাদকবিরোধী বিজ্ঞাপনের তৈরির বিষয়ে র‌্যাব মহাপরিচালক   বলেন,মাদক নির্মূলে আমরা শুধু অভিযানে থেমে নেই। মাদক নির্মূলে বিভিন্নভাবে প্রচার-প্রসার মাধ্যমে সমাজে সচেতনতা বৃদ্ধির প্রচারণা চালাচ্ছি। আর তারই ধারাবাহিকতায় আমাদের এই বিজ্ঞাপন প্রচারণা।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব ফরিদ উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন আহমেদ।

উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, আইজিপি, সচিবগণ, সুরক্ষা ও জননিরাপত্তা বিভাগ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ডিএমপি কমিশনার, ডিবি র‌্যাব ফোর্সেস।

উল্লেখ্য, অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাপটপের বাটন চেপে বিজ্ঞাপনের উদ্বোধন করেন।

কমেন্টস